ঘুমের ঘোরে সত্য স্বীকার করায় স্ত্রীকে পুলিশে দিলেন স্বামী

|

ছবি: সংগৃহীত

ঘুমিয়ে বিড়বিড় করে কথা বলার অভ্যাসও যে বিপদ ডেকে আনতে পারে তা এ ঘটনা সামনে না আসলে কেউ জানতেই পারতো না। ঘটনা ইংল্যান্ডের লিভারপুল শহরের। ওই শহরের বাসিন্দা রুথ ফোর্টেরও বাতিক ছিল ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে বিড়বিড় করার। আর এই বিড়বিড় করে অজান্তেই নিজের সব অপকর্ম বলে ফেলেন তিনি। আর সেই ঘটনাই কাল হয়ে দাঁড়ালো তার জীবনে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়, রুথ ফোর্টের স্বামী অ্যান্টনি ফোর্ট পাশে শুয়ে সবটাই শুনে ফেলেছিলেন। যা নিয়ে তার মনে সন্দেহ দানা বেঁধেছিল, ঘুমের মধ্যে স্ত্রী সবটা বলে দিতেই নিশ্চিত হয়ে যান তিনি। এরপর স্থানীয় থানায় অ্যান্টনি নিজের স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। তিনি পুলিশকে জানান, লিভারপুল ইউনিভার্সিটিতে একসাথে পড়াশোনা করার পর তাদের বিয়ে হয়। তিন সন্তান রয়েছে তাদের। দু’জনেই রোজগার করে কোনোমতে সংসার চালান।

আরও পড়ুন: মোবাইলে গেম খেলা নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ!

কিছুদিন আগেই কেয়ারটেকারের চাকরি পায় তার স্ত্রী রুথ। এক অসুস্থ বৃদ্ধ নারীকে দেখাশোনা করতে হতো তাকে। অসুস্থ ওই নারী সবসময় হুইলচেয়ারে থাকেন। রুথকে তিনি বিশ্বাসও করেন। সেই বিশ্বাস এবং অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে তার ব্যাঙ্ক থেকে টাকা চুরি করেছে রুথ।

অ্যান্টনি পুলিশকে আরও জানান, কিছুদিন আগেই মেক্সিকোতে ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন তারা। রুথ সেখানে এত বাজে খরচ করছিল, যা দেখেই সন্দেহ হয়েছিল অ্যান্টনির। এত টাকা কোথা থেকে পেল জিজ্ঞেস করায় রুথ জানিয়েছিল, তার আত্মীয় পাঠিয়েছেন। কিন্তু তারপরেও সন্দেহ দূর হয়নি অ্যান্টনির। একদিন স্ত্রীর ব্যাগে একটি অচেনা এটিএম কার্ডও দেখতে পান তিনি। পুলিশের কাছে তিনি জানান, তার স্ত্রী মোট সাত হাজার ৭০০ পাউন্ড চুরি করেছে।

/এনএএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply