হেডিংলি টেস্ট খেলা হচ্ছে না স্মিথের

|

দুঃসংবাদ অস্ট্রেলিয়ার জন্য। শঙ্কাটাই সত্যি হলো। অ্যাশেজের হেডিংলি টেস্ট থেকে ছিটকে গেছে তাদের সেরা ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ। লর্ডসে চতুর্থ দিনে জেফরা আর্চারের বলে মাথায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল স্মিথকে। সেই আঘাতের কারণে মিস করছেন পরের টেস্ট।

আর্চারের বলে আঘাত পাওয়ার পর উইকেটে পড়ে গিয়েছিলেন স্মিথ। খানিক পর ছাড়তে বাধ্য হন উইকেট। পরে অবশ্য ড্রেসিং রুমে কয়েক দফা প্রাথমিক পরীক্ষা শেষে আবার ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন। তবে ফেরার পর আগের মতো ছন্দ পাননি উইকেটে। দিনের খেলা শেষে রাতে তার অবস্থা আবার খারাপের দিকে যায়। মাথা ব্যথার সঙ্গে ছিল ঝিম ধরা অনুভূতি। ম্যাচের শেষ দিনে তাই তাকে তুলে নেওয়া হয় মাঠ থেকে। ‘কনকাশন’ বদলির নতুন নিয়ম ‘লাইক ফর লাইক’ সাবস্টিটিউশন অনুযায়ী তার বদলে খেলতে নামেন মারনাস লাবুশেন।

তখন থেকেই পরের টেস্টে স্মিথের খেলা নিয়ে শঙ্কা ছিল। সোমবার যদিও অজি ব্যাটসম্যান ট্রাভিস হেড সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, স্মিথের অবস্থা ভালোর দিকে। তবে মঙ্গলবার অনুশীলন করতে দেখা যায়নি স্মিথকে। বেশ সময় নিয়েই তার সঙ্গে কথা বলেছেন দলের চিকিৎসক রিচার্ডস। এসব ক্ষেত্রে চিকিৎসককেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দেওয়া আছে অস্ট্রেলিয়া দলে। শুধু চিকিৎসকই নয়, দীর্ঘদিনের গুরু, সাবেক অজি অধিনায়ক ও ধারাভাষ্যকার মার্ক টেলরের সঙ্গেও লম্বা সময় কথা বলতে দেখা গেছে স্মিথকে।

পরে কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার, সহ-অধিনায়ক প্যাট কামিন্সকে দেখা গেছে, স্মিথের কাছে গিয়ে পিঠ চাপড়ে দিতে। সান্ত্বনা দেওয়ার সেই ছবিগুলোতেই ফুটে ওঠে সম্ভাব্য বাস্তবতা। একটু পর ল্যাঙ্গার আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেন, হেডিংলি টেস্টে থাকছেন না স্মিথ।

আগের টেস্টে কনকাশন বদলি হিসেবে খেলতে নেমে ম্যাচ বাঁচানো ফিফটি করা লাবুশেন এবার শুরু থেকেই জায়গা পাচ্ছেন মূল একাদশে। সিরিজের প্রথম টেস্ট জিতে ১-০তে এগিয়ে থাকলেও অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডার ফর্মে নেই। প্রথম টেস্টে ১৪৪ ও ১৪২ রানের অসাধারণ দুটি ইনিংসের পর লর্ডসে একমাত্র ইনিংসে ৯২ রান করে মূলত স্মিথই অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংকে টেনে নিয়ে গেছেন। সাবেক অধিনায়ককে হারিয়ে তাই বড় ক্ষতিই হয়ে গেলো অস্ট্রেলিয়ার।









Leave a reply