অপুকে ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছেন শাকিব


অবশেষে শাকিব খান-অপু বিশ্বাস জুটির বিবাহ বিচ্ছেদের গুঞ্জন সত্য হলো। ৪ ডিসেম্বর ব্যক্তিগত আইনজীবীর মাধ্যমে অপু বিশ্বাসের কাছে ডিভোর্স লেটার পাঠান চিত্রনায়ক শাকিব খান। অপু বিশ্বাসের নিকেতন ও বগুড়ার, দুই ঠিকানাতেই পাঠানো হয়েছে লেটার। কিন্তু ডিভোর্স নিয়ে একেবারেই চুপ অপু বিশ্বাস, অন্যদিকে শুটিং নিয়ে হায়দ্রাবাদে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন শাকিব।

মুসলিম শরীয়াহ আইনের ৭(১) ধারায় এই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশ পাঠিয়েছেন শাকিব খানের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে দুটো কারণ। ছেলেকে একা রেখে অপুর দেশের বাইরে ভ্রমণ এবং বিয়ের পরও শাকিবের নির্দেশ নির্দেশের তোয়াক্কা না করা অপু বিশ্বাস।

শাকিব খানের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেন, শাকিবের পছন্দের সীমার মধ্যে চলাফেরা করতো না অপু। সাকিব-ডানে চলতে বললে সে বামে চলতো। এ কারণে শাকিব মনে করেছে যে প্রত্যাশা থেকে সে এই সংসার করছে তা থেকে সে বঞ্চিত হচ্ছে সে।

তিনি আরও বলেন, সন্তান হলো একটি সংসারের শ্রেষ্ঠ সম্পদ। অপু সে সন্তানকে কাজের লোকের কাছে রেকে বাহির থেকে তালা দিয়ে দেশের বাহির থেকে ঘুরে এসেছে। এরকম অমানবিক আচরণ যার দ্বারা সম্ভব তাকে দিয়ে আর যাই হোক সংসার হয় না। এ কারণে শাকিব স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছে তাকে ডিভোর্স লেটার দিয়েছে।

এদিকে, ডিভোর্সের বিষয় নিয়ে সারাদিন কোনো কথা বলেননি অপু বিশ্বাস। দুপুরের পর থেকে বাসায় ছিলেন না অপু বিশ্বাস। সন্ধ্যার পর বাসায় ফিরলেও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হননি এই চিত্রনায়িকা।

ডিভোর্সের বিষয়ে মিডিয়াকে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত করেছিলেন শাকিব খানের পারিবারিক বন্ধু প্রযোজক মো: ইকবাল। পরবর্তীতে রাত দশটার পর শাকিব-অপুর ডিভোর্স নিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন তিনি।

শাকিব খানের পারিবারিক বন্ধু মো: ইকবাল বলেন, বাচ্চাকে রেখে অপুর বিদেশে চলে যাওয়াটা শাকিব মেনে নিতে পারেনি। তাছাড়া, অপু শাকিবের সাথে মানিয়ে চলার কোনো ধরনের চেষ্টা করেনি। চলচ্চিত্রে শাকিবের যারা শত্রু তাদের সাথেই বরং তাল মিলিয়ে চলেছে। অপু যদি আমাকেও একবার বলতো, তাহলেও সুন্দর সমাধান বের হয়ে আসতো।

তবে বাচ্চার জন্য যা যা করা প্রয়োজন তার সবকিছু শাকিব খান করবেন বলে মন্তব্য করেছেন এই প্রযোজক।

২০০৮ সালে গোপনে বিয়ে করেন শাকিব-অপু। চলতি বছরের ১০ এপ্রিল ছেলে আব্রাহাম খান জয়কে নিয়ে প্রকাশ্যে এসে সেটির জানান দেন অপু বিশ্বাস। নানা মনোমালিন্যের জেরে শেষ পর্যন্ত ৪ ডিসেম্বর অপু বিশ্বাসকে ডিভোর্স লেটার পাঠালেন শাকিব।

 

 









Leave a reply