‘মশক নিধনে কর্মী সংখ্যা ৪২৯, ওষুধ নিয়ে গবেষণার জন্য কোনো ল্যাব নেই’

|

দক্ষিণ সিটিতে মশক নিধনে কর্মী সংখ্যা ৪২৯ জন বলে জানান এর প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রি.জেনারেল ডা. মো: শরীফ আহমেদ। মশার ওষুধ নিয়ে গবেষণার জন্য সিটি করপোরেশনের কোনো ল্যাব নেই বলেও জানান দুই সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

এরআগে সকালে মশা নিধনে কি ব্যবস্থা নেয়া হয়ছে সেই জবাব দিতে হাইকোর্টের তলবে আদালতে হাজির হয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রি.জেনারেল ডা. মো: শরীফ আহমেদ এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগে. জেনারেল মো: মোমিনুর রহমান মামুন।

বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দীর বেঞ্চে হাজির হয়ে ডেঙ্গু নিধনে দুই সিটির কার্যবিবরণী হাইকোর্টে দাখিল করেন তারা।

আদালত এসময় বলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে ঔষধ আনতে হবে। যে কোন উপায়ে ডেঙ্গু নিধন করতে হবে। আমলাতান্ত্রিক জটিলতার সুযোগ নেই। ডেঙ্গু যে খারাপ পরিস্থিতিতে গেছে এটা কেবল সিটি করপোরেশন এর ওপর ছেড়ে দিলে হয় না, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কে এখানে যুক্ত হতে হবে।









Leave a reply