আবারও আম্পায়ারিং বাঁচিয়ে দিলো ইংল্যান্ডকে!

|

বিশ্বকাপ ফাইনালে আজ বাজে আম্পায়ারিংই যেন মূল আলোচনার বিষয়। কুমার ধর্মসেনা ও মারাইস এরাসমাস দুজনেই লর্ডসে ভুল সিদ্ধান্ত দিলেন। তাদের বাজে আম্পায়ারিং এ বিশ্বকাপে আবারও প্রশ্নের মুখে ফেলেছে আইসিসিকে।

আগের ইনিংসে দুটি সিদ্ধান্ত গিয়েছিলো নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। এর মধ্যে রিভিউয়ের মাধ্যমে একটি পক্ষে আনতে সক্ষম হলেও অন্যটি বিপক্ষে গেছে রিভিউ শেষ হয়ে যাওয়ায়।

এদিকে ইংলিশরা ব্যাটিং শুরুর পরপরই আরেকটি সিদ্ধান্ত যায় ইংল্যান্ডের পক্ষে। ইংলিশ ওপেনার জ্যাসন রয়েরের বিরুদ্ধে এলবিডব্লিউর আবেদন করেন বোলার বোল্ট। ইনসুইংগার রয়ের পায়ে লেগে পেছনে যায়। বল সরাসরি প্যাডে লেগেছিল। হাইটও স্টাম্প বরাবর ছিল। তবে বলটির একাংশ অফ স্টাম্পের কিছুটা বাইরে পড়েছিল।

নিউজিল্যান্ডের ফিল্ডারদের আবেদনে আম্পায়ার সাড়া না দেয়ায় রিভিউ চান অধিনায়ক উইলিয়ামসন। এসব ক্ষেত্রে আম্পায়ারের প্রথম সিদ্ধান্তই বহাল থাকে। রিভিউতে বল অফ স্টাম্পের কিছুটা বাইরে থাকায় বেচে যান ব্যাটসম্যান। তবে আম্পায়ার যদি আউট দিয়ে দিতে তাহলে সেটিও বৈধ হতো।

নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের শুরুতে হেনরি নিকোলসকে এলবিডব্লিউর আউট হিসেবে ঘোষণা করেন। ক্রিস ওকসের বলে এ সিদ্ধান্ত দেন তিনি। তখন নিকোলস রিভিউ নেওয়ায় বেঁচে যান। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় উইকেট উচ্চতার কারণে স্টাম্প মিস করত। তবে মারাইস এরাসমাসের সিদ্ধান্তে রিভিউ নিতে পারেননি টেইলর। কারণ সতীর্থ মাটিন গাপটিল ওকসের বলে আউট হওয়ার সময় রিভিউ নেন। এতে রিভিউ শেষ হয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের।

৩৩ ওভার এক বলে তাই রস টেইলর বিদায় নেন ১৫ রানে। মার্ক উডের বলে লেগ বিফোর উইকেট আউট হন তিনি।

অথচ এরাসমাসের সিদ্ধান্তটি ছিল সম্পূর্ণ ভুল। স্কয়ার লেগে ব্যাট চালিয়েছিলেন অভিজ্ঞ টেইলর। তবে তার ব্যাটে না লেগে প্যাডে স্পশ করে বল। টিভি রিপ্লেতে দেখা গেছে বলটি লেগ স্টাম্পের উপর দিয়ে যেতে। তবে টেইলরের হাতে রিভিউ ছিল না।









Leave a reply