ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় ভাইকে পিটিয়ে জখম

|

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় দুই ভাইকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার সকালে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী দক্ষিণ বাজারে এই ঘটনা ঘটে। এই সময় মেয়ের গলা থেকে দেড় ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। আহত দুই ভাই বাঞ্ছারামপুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার আইলপাড়া গ্রামের দুই ভাই ও বোন বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী দক্ষিণ পাড়ায় নানা মৃত আব্দুস সাত্তার ফুল মিয়ার বাড়িতে যাওয়ার পথে রূপসদী দক্ষিণ বাজার মন্দির সংলগ্ন এই ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটে। আরও জানা যায়, নারায়ণগঞ্জে সরকারি তোলারাম কলেজ থেকে বাংলা বিভাগে মার্স্টাস পাশ করা সালামা আক্তার (২৫) কে দেখে রূপসদী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য নজরুল ইসলাম নজুর ছোট ভাই মোহন মিয়া মেয়েটিকে ধাক্কা দেওয়ায় পাশে থাকা তার দুই ছোট ভাই বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর ম্যাকানিক্যাল টেকনিশিয়ান মো. নোমান হোসেন (২৩) ও মো. নাছির উদ্দিন নয়ন (১৭) প্রতিবাদ করলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাদেরকে মোহন ও তার লোকজন কিল-ঘুষি ও লাঠিসোঠা দিয়ে এলাপাথাতাড়ি ভাবে পিটিয়ে আহত করে।

তাৎক্ষণিকভাবে প্রত্যক্ষদর্শীরা দুই ভাইকে উদ্ধার করে বাঞ্ছারামপুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঘটনার পরে হামলাকারী মোহন মিয়া পলাতক রয়েছে।

এই বিষয়ে ভুক্তভোগী মো. নোমান হোসেন বলেন আমরা দুই ভাই ও বোন রূপসদী গ্রামে নানার বাড়িতে যাওয়ার পথে নজরুল মেম্বারের ভাই মোহন আমার বড় বোনকে ইভটিজিং করে গায়ে টাচ করে। তাৎক্ষণিক ভাবে আমি ও আমার ছোট ভাই প্রতিবাদ করি। মোহন ও তার সাথে থাকা আরো চার-পাঁচজন ছেলে মিলে তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে আমার বোন ও আমরা দুইভাইকে মারধর করে রক্তাক্ত করে আমার বোনের গলা থেকে একটি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়।

এই বিষয়ে নজরুল ইসলাম নজু বলেন আমার ছোট ভাই মোহন আমাকে বলছে ওই মেয়ে নাকি তার বিরুদ্ধে গায়ে হাত দেওয়ার অভিযোগ তুলছে। এই নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আমার ভাইকে মেয়ের দুই ভাই ঘুষি দিছে। পরে আমার ভাই ও ওদের দুই ভাইকে কিল-ঘুষি দিছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply