নিষিদ্ধ লাল বোটওয়ালাদের দৌরাত্ম্য: নদীতে ফেলে দেয়া হলো প্রবাসীকে

|

চট্টগ্রামের কুমিরা ও সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া নৌপথে সার্ভিস বোট থেকে তীরে যেতে লালবোট নাম এক ধরনের নৌযান ব্যবহৃত হয়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিষিদ্ধ করা হলেও অবৈধভাবে চালানো হচ্ছে এ ধরনের অসংখ্য বোট। এবং প্রতিনিয়ত বোটচালক ও স্টাফদের হাতে হয়রানির শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা।

সর্বশেষ, গতকাল বড় ধরনের ঔদ্বত্যপূর্ণ আচরণ করেছে একটি লালবোটের স্টাফরা। অতিরিক্ত যাত্রী হিসেবে উঠতে অস্বীকৃতি জানানোয় দুবাই ফেরত দুই প্রবাসীসহ চার যাত্রীকে পিটিয়ে নদীতে ফেলে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের মালিকানাধীন চট্টগ্রামের কুমিরা ও সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া ফেরী ঘাটের গুপ্তছড়া অংশে এ ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার হওয়া ওই চার যাত্রী হলেন মো. মানিক, মো. সোহেল, মো. শিবলু ও মো. শিহাদ। তারা সবাই সন্দ্বীপ মুছাপুরের আলীমিয়ার বাজার এলাকার মান্দিরগো বাড়ির বাসিন্দা ও সম্পর্কে সবাই আত্মীয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুবাই ফেরত দুই প্রবাসী সোহেল ও শিবলুকে নিয়ে চট্টগ্রামের কুমিরা ঘাট থেকে সার্ভিস বোটে করে সন্দ্বীপ যাচ্ছিলেন। দুই প্রবাসীর মা-বাবাসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাদের সাথে ছিলেন।

সন্দ্বীপের কূলে আসার পর ভাটার কারণে সার্ভিস বোট থেকে যাত্রীদের কূলে নামানোর জন্য আসা লালবোটে উঠচ্ছিল। সাথে ছোট বাচ্চা ও নারী থাকায় দুবাই প্রবাসী সোহেল অতিরিক্ত যাত্রীবাহী বোটে যেতে অস্বীকৃতি জানান।

কিন্তু বোটের চালক ও স্টাফরা তাকে নামাতে জোরজবরদস্তি শুরু করেন। সোহেল তাতেও অসম্মতি জানালে স্টাফদের একজন সোহেলকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। গালির প্রতিবাদ করার পর স্টাফরা প্রথমে সোহেলকে ধাক্কা দিয়ে সার্ভিসবোট থেকে লালবোটে ফেলে দেয়। পরে সেখানে তাকে বেধড়ক পেটায়।

এক পর্যায়ে সোহেলকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তার বাবা ও ছোট দুই ভাইকেও মারধর করে ঘাট ইজারাদারের লোকজন। এ সময় সার্ভিস বোটে থাকা যাত্রীরা বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে ইজারাদারের লোকজন লালবোট চালিয়ে সার্ভিস বোট থেকে দূরে সরে যায়। সেখানে ওই অবস্থায় আরেক দফা মারধর করে। পরে কূলের কাছাকাছি এলে একজন কর্মচারী প্রবাসী সোহেলকে লাথি দিয়ে নদীতে ফেলে দেয়।

হামলার শিকার প্রবাসী সোহেল জানান, একটি লালবোটে ৬০ জনের বেশি যাত্রী নেয়ায় আমি উঠতে রাজি হইনি। এজন্য ওরা আমাকে ও আমার ভাইদের মেরে নদীতে ফেলে দিয়েছে। প্রবাসে বসে দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কুমিরা গুপ্তছড়া ঘাটে যাত্রীদের প্রতি অত্যাচার করার কথা শুনেছিলাম, আজ আমি নিজে প্রবাস থেকে দেশে এসে অত্যাচারের শিকার হলাম।

ঘটনার পর সোহেলকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply