মাত্র ৩০ হাজার টাকা বদলে দিয়েছে ৪৫ হতদরিদ্র পরিবারের জীবন

|

মোজাম্মেল হোসেন মুন্না, গোপালগঞ্জ

বাংলাদেশ ব্যাংকের মাত্র ৩০ হাজার টাকা বদলে দিয়েছে হতদরিদ্র মানুষের জীবন চিত্র। মাত্র ৪ বছরের ব্যবধানে গোপালগঞ্জের বেলেডাঙ্গা গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষেরা এখন অনেকটা সাবলম্বী। আগামীতে তারা দারিদ্র সীমার নিচ থেকে উঠে এসে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছে। স্বপ্ন দেখছে ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ করতে। এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে নিরলস ঘাম ঝরাচ্ছেন টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের বেলেডাঙ্গা গ্রামের ৪৫টি হতদরিদ্র পরিবার।

বিগত ২০১৫ সালের ১৭ অক্টোবর বাংলাদেশ ব্যাংক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলের অর্থায়নে বেলেডাঙ্গা গ্রামের ৪৫টি হতদরিদ্র পরিবারের প্রত্যেককে ৩০ হাজার টাকা করে সাড়ে ১৩ লক্ষ টাকা অনুদান দেয়া হয়। টাকা পেয়ে তারা গরু ও হাঁস মুরগী লালন পালন করতে থাকে। গরুর দুধ ও হাঁস মুরগীর ডিম বিক্রি করে তারা এখন অনেকটা স্বচ্ছল জীবন যাপন করছেন। 

পশ্চাদপদ বেলেডাঙ্গা গ্রামের ৬০টি পরিবারের মধ্যে ৪৫টি পরিবারকে এই অনুদান দেয়া হয়। টাকা পেয়ে তারা কেউ গরু লালন-পালন করে, আবার কেউ হাঁস-মুরগী পালন করে আসছে। গরুর দুধ বা হাঁস মুরগীর ডিম বিক্রি করে সংসারের ভরণ পোষন ও ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার খরচ চালাচ্ছেন তারা। কেউ বা জমি বন্ধকী রেখেছেন। সেই জমি চাষাবাদ করে ধান বা সবজি ফলাচ্ছেন। আবার অনেকে গরু বিক্রি করে মেয়ে বিয়ে দিয়েছেন। 

এক সময় এই গ্রামটিতে ছিলোনা বিদ্যুত। অন্ধকারাচ্ছন্ন গ্রামটিতে এখন জ্বলছে বিদ্যুতের আলো। স্কুল বা কলেজে পড়ুয়া ছেলে-মেয়েরা এখন বিদ্যুতের আলোতে লেখাপড়া করছে। ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়া ও গ্রাম বাসীর কাজের ফাঁকে তারা টেলিভিশনে দেশ বিদেশের খবরা খবর  দেখেন।

কিন্তু এই গ্রামের প্রায় ৪শ’ মানুষের চলাচলের জন্য নেই কোন রাস্তা বা প্রাথমিক বিদ্যালয়। তারা জমির আইল বা ঘেরের পাড় দিয়ে যাতায়াত করেন। গ্রামের অসুস্থ রোগীদের হাসপাতাল বা ডাক্তারের কাছে নিতে খুব  সমস্যা পোহাতে হয়। এই গ্রামে বে-সরকারি উন্নয়ন সংস্থা কারিতাসের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।

সেখানে লেখাপড়া শেষে ছাত্র- ছাত্রীদের প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে পাশের গ্রাম গোপালপুর বা রাখিলাবাড়ি গ্রামে যেতে হয় । সরকার  বেলেডাঙ্গা গ্রামে অন্তঃত একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রাস্তার তৈরি করে দিবে এমনটি দাবি গ্রামবাসীর। 

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাকিব হাসান তরফদার জানান, বিগত সময়ে বেলেডাঙ্গা গ্রামের হতদরিদ্র মানুষদের সরকার যে আর্থিক অনুদান দিয়েছিলো তার সঠিক ব্যবহার হয়েছে। যারা টাকা পেয়েছিল তারা গরু, হাঁস, মুরগী বা জমি মডগেজ রেখে নিজেদের উন্নয়ন করছেন।

সরকারের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বেলেডাঙ্গা গ্রামের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। ওই গ্রামের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার  জন্য বিদ্যালয় ও চলাচলের সুবিধার জন্য একটি রাস্তা  নির্মাণ হবে এমনটি প্রত্যাশা ওই এলাকার মানুষের।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply