ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় বিশ্বকাপে লোকসান ২১৮ কোটি টাকা!

|

বৃষ্টিতে পন্ড হচ্ছে ম্যাচ। আর তাতে মাথায় বাজ ভেঙে পড়ছে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর।

তিন ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়ায় লোকসান ছাড়িয়েছে শতকোটি টাকা। প্রায় ২১৮ কোটি টাকা স্টকহোল্ডারদের দিতে বাধ্য হয়েছে বীমাপ্রতিষ্ঠান।

সেই ক্ষতি আরো বাড়বে যদি না হতে পারে ভারত-পাকিস্তান হাইভোল্টোজ ম্যাচটি। ভয়াবহ সেই ক্ষতি কাটিয়ে উঠা প্রায় অসম্ভব স্টারসহ অন্যান্য সম্প্রচারকারী প্রতিষ্ঠানের।

ইংল্যান্ডের আকাশে কান্না শুধু মাঠেই ভিজিয়ে দিচ্ছে না, চোখের জলে পরিণত হয়েছে অনেক দলের। টেমস নদীর সেই জলের পরিমাণ বাড়িয়ে দিচ্ছে অনেক বিনিয়োগকারীর চোখের জলে।

বেরসিক বৃষ্টিতে মাথায় হাত অনেকের। যারা কাড়ি কাড়ি টাকা বিনিয়োগ করেছেন, বৃষ্টি এলেমেলো করে দিচ্ছে সব। বৃষ্টিতে তাই বিশ্বকাপের সাথে ভাসছে বিশ্বব্যবসাও।

এখন পর্যন্ত চার ম্যাচ আক্রান্ত বৃষ্টিতে। তিন ম্যাচে তো টসই হয়নি। এর ফলে কত টাকার ক্ষতি হয়েছে জানেন?

২১৮ কোটি টাকা। তবে খড়গ নেমেছে বীমাপ্রতিষ্ঠানের উপর। সম্প্রচার সহ যারা যুক্ত তাদেরকে এই টাকা এরমধ্যে দিয়ে দিয়েছে বীমাপ্রতিষ্ঠান।

এখানেই শেষ নয়, এর সাথে অন্যান্য ক্ষতি বাবদ আরো ১৪০ কোট রুপি দাবি করেছে আইসিসির ব্রডকাস্ট প্রতিষ্ঠান স্টার স্পোর্টস। তাই তো এর বীমার প্রিমিয়াম বেড়ে এখন ৩০০ শতাংশ।

লোকসানের কালো মেঘ আরো ঘনিভুত ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ ঘিরে। ম্যানচেস্টার ম্যাচের দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে হানা দিতে পারে বৃষ্টি। বৃষ্টি আসতে পারে সকালেও।

অথচ এই ম্যাচে প্রতি সেকেন্ড বিজ্ঞাপনের চাং বিক্রি হয়েছে আড়াই লাখ রুপিতে। টিকিট বিক্রি হয়েছে ৬০ হাজার রুপিতেও। বিজ্ঞাপন দাতারা প্রতি স্লটে খরচ করেছেন ৫০ শতাংশের বেশি। এই ম্যাচ শুধু বিজ্ঞাপন থেকে আয় প্রায় ১৩৭ কোটি রুপি হতে পারে স্টারের। কিন্তু যদি ম্যাচ না হয় তাহলে লোকসান গুণতে হবে ১৬৬ কোটি টাকা।









Leave a reply