বিশ্বকাপে বৃষ্টি-বিলাস

|

আকাশ মেঘে ঢাকা শাওন ধারা ঝরে…।

ইংল্যান্ডের আকাশের বোধহয় কান্নাকাটি করার বাতিক একটু বেশি! যখন-তখন অঝোর ধারায় ঝরে। এ নিয়ে পরপর দু’দিন বৃষ্টি ভাসিয়ে নিয়ে গেল বিশ্বকাপের দুটি ম্যাচ। আগেরদিন তা-ও ৭.৩ ওভার পর্যন্ত খেলা হয়েছিল। দক্ষিণ আফ্রিকা ২৯/২ করতেই মুষলধারে বৃষ্টি নামে। খেলা আর শুরু করা সম্ভব হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিজেদের দুর্ভাগা ভাবতেই পারে।

অতিশয়োক্তি হবে না যদি বলা হয়, ব্রিস্টলে মঙ্গলবারের বৃষ্টি সত্যিকার অর্থে ক্ষতি করে দিয়ে গেল বাংলাদেশের। এই বিশ্বকাপে বাংলাদেশের জয়ের তালিকায় যে ম্যাচটি ছিল সবার উপরে, সেটিই পরিত্যক্ত হল। একটি বলও হল না। কী ভাগ্য শ্রীলংকার। দুটি ম্যাচই তাদের খেলতে হল না বৃষ্টির বদান্যতায়। পাকিস্তান ও বাংলাদেশ ম্যাচ থেকে একটি করে পয়েন্ট পেয়ে গেল চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দল। বাংলাদেশ সত্যিই দুর্ভাগা। এক নয় পুরো দুই পয়েন্ট ছিল তাদের প্রাপ্য। এক পয়েন্ট কেড়ে নিল বৃষ্টি!

বৃষ্টির সঙ্গে তিন কাঠির খেলার আড়ি চিরদিনের। আকাশের মন খারাপ হলে, প্রকৃতির কান্নায় বসুন্ধরা যখন সিক্ত হয়, ক্রিকেট তখন নৈবনৈবচ। বাদলা দিনে ক্রিকেটহীনতায় প্রকৃতিপ্রেমীরা বলতেই পারেন, আবহাওয়ায় কারও হাত নেই। অধিনায়করাও একথা বলেন। বলেন বটে, মনের গভীরে কোথাও আক্ষেপ উথাল-পাথাল করে। আহা! ম্যাচটা যদি হতো, জিততেও পারতাম!

ইংল্যান্ডের আবহাওয়া সম্পর্কে সবারই জানা। আকাশের কোনো ঠিকঠিকানা নেই। কখন হুড়মুড় করে বৃষ্টি নামবে কেউ বলতে পারে না। ঘর থেকে বের হওয়ার সময় ছাতা সঙ্গে নেয়াটা তাই তাদের চাই। ইংল্যান্ডের উঠোনে এটি পঞ্চম বিশ্বকাপ। এবারই প্রথম দুটি ম্যাচ টস ছাড়াই খারিজ করে দিল বৃষ্টি। আর কোনো বিশ্বকাপে দুটি ম্যাচ পুরোপুরি বৃষ্টির পেটে চলে যায়নি।

১৯৯৬ বিশ্বকাপ উপমহাদেশে আনতে সেসময়ের আইসিসি প্রেসিডেন্ট প্রয়াত জগমোহন ডালমিয়াকে যথেষ্ট কাঠখড় পোড়াতে হয়েছিল। বলা হয়েছিল, বৃষ্টি-বাদলার সময় উপমহাদেশে (ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলংকা) বিশ্বকাপের আয়োজন করাটা অনুচিত। ডালমিয়া তখন বিশ্বকাপ আয়োজনের সময়ের আবহাওয়ার প্রতিবেদন আইসিসিতে জমা দিয়ে বোঝাতে সক্ষম হন যে, তখন বৃষ্টির কোনো পূর্বাভাস নেই।

ইংল্যান্ড এরকম কিছু করেছে জানা নেই। বিলেতি বাবুদের সেরকম কিছু করার প্রয়োজনও বোধহয় নেই। কিন্তু বিশ্বকাপে এই বৃষ্টি-বিলাস যে বাংলাদেশের সেমিফাইনাল স্বপ্নে হতাশার আঁচড় বুলিয়ে দিল। চার ম্যাচ থেকে আর যাই হোক, তিন পয়েন্ট মাশরাফিদের প্রাপ্য ছিল না।









Leave a reply