হারের ধাক্কা সামলে জয়ের প্রত্যয়

|

বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে প্রতিটি দল নয়টি করে ম্যাচ খেলবে। সে হিসাবে প্রাথমিক পর্বে বাংলাদেশের তিন ভাগের এক ভাগ খেলা শেষ। প্রথম তিন ম্যাচে জয় একটি, দুটি হার। ফলাফলের হিসাবে প্রথম পর্বটা হয়তো ভালো হয়নি বাংলাদেশের। কিন্তু প্রথম তিন ম্যাচের প্রতিপক্ষ বিচার করলে ফলটা মাশরাফিদের জন্য খারাপও হয়নি। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল প্রথম তিন ম্যাচে একটি জয়। সেটা হয়েছে। পরের ধাপে আসল চ্যালেঞ্জ। পরের ধাপে বাংলাদেশের তিন ম্যাচ শ্রীলংকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে।

তিনটি ম্যাচই জেতার লক্ষ্য বাংলাদেশের। ব্রিস্টলে শ্রীলংকার বিপক্ষে চতুর্থ ম্যাচ আগামীকাল। কার্ডিফ মিশন শেষে লংকানদের বিপক্ষে জয়ের লক্ষ্য নিয়ে রোববার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টার দিকে ব্রিস্টলে পৌছান মাশরাফি-সাকিবরা।

বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে মাশরাফি বলেছেন, ‘বাংলাদেশের শুরুর সূচি অনেক কঠিন। সেই কঠিন চ্যালেঞ্জ পেরোতে পারলে ভালো হবে।’ প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে শুরু। দ্বিতীয় ম্যাচে কিউইদের বিপক্ষে লড়াই করে হার। শনিবার স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অবশ্য পাত্তা পাননি মাশরাফিরা।

আগামীকাল শ্রীলংকার বিপক্ষে ফেভারিট হিসেবেই মাঠে নামবে বাংলাদেশ। র‌্যাংকিংয়ে তারা বাংলাদেশের চেয়ে দুই ধাপ পিছিয়ে। গত বছর এশিয়া কাপে তাদের বিপক্ষে সর্বশেষ মুখোমুখিতে বাংলাদেশ জিতেছিল ১৩৭ রানে। কিন্তু বিশ্বকাপ বলেই শ্রীলংকাকে উড়িয়ে দিতে পারছে না বাংলাদেশ। সাকিব বলেন, ‘সেমিফাইনালে উঠতে হলে পাঁচ/ছয়টি ম্যাচ জিততে হবে। এখানে প্রতিটি দলই শক্তিশালী। সবাই সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করে। শ্রীলংকার সঙ্গেও জিততে হলে সেরাটা দিতে হবে। শ্রীলংকারও ভালো খেলোয়াড় আছে।’

বিশ্বকাপের আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুর্বল মনে হয়েছিল। তারা এখন শক্তিশালী। ১৭ জুন টন্টনে বাংলাদেশের ম্যাচ তাদের সঙ্গে। র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের চেয়ে নিচে থাকলেও ইংলিশ কন্ডিশনে তাদের ভয়ংকর দেখাচ্ছে। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের রেকর্ড দুর্দান্ত।

সর্বশেষ নয় ম্যাচের মধ্যে সাতটিতেই জিতেছেন মাশরাফিরা।

র‌্যাংকিংয়ে আরও নিচে থাকা আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের ঠিক উপরে থাকা পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় প্রত্যাশিত। আফগানিস্তান বিশ্বকাপে এখনও জয়শূন্য। পাকিস্তান প্রথম ম্যাচে হারলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশ সর্বশেষ চার ম্যাচেই জিতেছে। বাকি দলগুলোর মধ্যে থাকছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া। টুর্নামেন্টের অন্যতম ফেভারিট তারা। তা সত্ত্বেও দু’দলের মধ্যে একটি জয় আশা করছে বাংলাদেশ। কঠিন লড়াইয়ের জন্য তৈরি সাকিবরা।









Leave a reply