কেন্দুয়ায় গণধর্ষণ মামলার তিন আসামি গ্রেফতার

|

কামাল হোসাইন,নেত্রকোণা:

ঈদে বাড়িতে এসে প্রেমিকের সাথে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হওয়া গামেন্টর্স কর্মীর করা ধর্ষণ মামলায় তিন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন  টিপু মিয়া (২৩), আনোয়ার (২৪) ও আমির হামজা (২৫)।

পুলিশ তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে শুক্রবার রাতে গুগবাজার এলাকা থেকে টিপু মিয়াকে গ্রেফতার করে। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার বিকাল তিনটার দিকে একই এলাকা থেকে আনোয়ার ও আমির হামজাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।

তবে প্রেমিক সুমন ওরফে নুরে আলমকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেন পুলিশ। সুমনের গ্রামের বাড়ী মদন উপজেলার জাওলা গ্রামে।

কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রাশেদুজ্জামান জানান, ধর্ষিতার মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ভিকটিমকে সাথে কথা বলেন। তদন্তে টিপু মিয়া, আনোয়ার ও আমির হামজার নাম নাম বেরিয়ে আসে। আর সুমনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, কেন্দুয়া উপজেলার মাস্কা গ্রামের উক্ত নারী গামেন্টর্স কর্মী ও পাশ্ববর্তী মদন উপজেলার জাওলা গ্রামের সুমন গাজীপুরের একটি সোয়েটার কোম্পানিতে একসাথে চাকুরী করে। তারা দুজনেই বিবাহিত হওয়ার পরও তাদের মধ্যে সখ্যতা গড়ে উঠে। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার বিকেলে সুমন মোটর সাইকেলে করে ওই নারীকে তাদের বাড়ীতে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে তুলে নেয়। বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরির পর সন্ধ্যায়  গুগবাজার এলাকায় এসে গাড়ী নষ্ট হয়ে গেছে বলে ওই নারীকে মটর সাইকেল থেকে নামতে বলে। এরপর মটর সাইকেল ঠিক করার কথা বলে কোন একজনকে ফোন করে। এ সময় পার্শ্ববর্তী ইট খোলার ভেতর থেকে তিন যুবক এসে সুমন ও নারী গামেন্টর্সকর্মীকে ইটখোলার ভেতরে নিয়ে গিয়ে সুমনের হাত বেঁধে নারী কর্মীকে তিন যুবক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এরপর তাকে একা ফেলে রেখে ওই তিন যুবকসহ সুমন মোটর সাইকেল নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।









Leave a reply