বেশি দাম রাখায় শোরুম বন্ধ, আড়ং কর্তৃপক্ষের বক্তব্য

|

আজ রাজধানীর উত্তরায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে আড়ং শোরুমকে সাড়ে চার লাখ টাকা জরিমানা করা হয় ও একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি সাময়িক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে সংবাদ মাধ্যেমকে এক বিজ্ঞপ্তিতে কর্তৃপক্ষ তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, একই ধরণের পণ্যে প্রাইস ট্যাগে ভিন্ন দাম লেখা থাকার অভিযোগে সোমবার, ৩ জুন ২০১৯, আড়ং এর উত্তরা আউটলেটটি সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় একটি মোবাইল কোর্ট।

সম্মানিত ক্রেতাদের সুবিধাই আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আড়ং কখনোই কোনো উৎসবের আগে অধিক লাভের জন্য পণ্যের দাম বাড়ায় না। মোবাইল কোর্টের অভিযানের পরপরই এ বিষয়ে একটি অভ্যন্তরীণ তদন্তের মাধ্যমে আড়ং কৃর্তপক্ষ জানতে পারে যে ভুলবশতঃ কয়েকটি পণ্যে অন্য পণ্যের ট্যাগ লাগানো হয়েছিলো। এটি সম্পূর্ণ অনিচ্ছাকৃত একটি ভুল এবং আড়ং সকল ক্রেতাবৃন্দের কাছে এজন্য দুঃখপ্রকাশ করছে। সম্মানিত ক্রেতাদের সুবিধার্থে ঈদের আগে দ্রুত আবারো কার্যক্রম চালুর জন্য আড়ং কর্তৃপক্ষ সবরকম ব্যবস্থা নিচ্ছে। সম্মানিত কোনো ক্রেতা যদি আড়ং-এর কোনো আউটলেটে এ ধরণের কোনো সমস্যা দেখেন তাহলে তিনি এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আউটলেটে অভিযোগ জানাতে পারবেন এবং বিদ্যমান পলিসি অনুয়ায়ি তাঁকে বাড়তি মূল্যের সমপরিমাণ টাকা তাৎক্ষণিকভাবে ফেরত দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৫ মে এক ক্রেতা উত্তরা আড়ং থেকে একটি পাঞ্জাবি কেনেন ৭১৩ টাকায়। একই পাঞ্জাবি ৩১ মে কিনতে গেলে দাম রাখা হয় ১ হাজার ৩১৫ টাকা। ঐ ক্রেতা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ করেন। এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আজ উত্তরা আড়ংয়ে অভিযান চালিয়ে এর সত্যতা পায় অধিদফতর। আড়ং অভিনব কায়দায় বেশি দাম লিখে ভোক্তাদের ঠকাচ্ছে। কেনো দাম বেশি লেখা হলো যার কোনো কারণ জানাতে পারেনি আড়ংয়ের শোরুমে। পরে সাড়ে চার লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply