বিশ্বকাপে প্রথম বল করেছেন যারা

|

বিশ্বকাপকে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় উৎসব বলে মনে করা হয়। প্রতি চার বছর অন্তর এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের আয়োজন করা হয়েছে এগারো বার। আজ ওভালে ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠেছে ক্রিকেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় আসরটির।

আসরের প্রথম ম্যাচ মানে চার বছরে অপেক্ষার পালা শেষ হওয়া। তাই এসময় খেলোয়াড়দের উপর চাপও থাকে বেশি। বোলারদের ভূমিকা থাকে গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম বল করে এ পর্যন্ত এগার বোলার নাম লিখেছেন ইতিহাসের পাতায়। জেনে নেই তাদের কথা।

ক্রিকেট বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথম বল করেছেন ভারতের মদন লাল। ইংল্যান্ডের মাটিতে ১৯৭৫ সালে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ৬০ ওভারের। উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও ভারত। ইংল্যান্ডের ওপেনিং ব্যাটসম্যান ডেনিস লিলির প্রতি বল ছুঁড়ে বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথম বল করার নাম লেখান মদন লাল। ম্যাচটি ভারত হারলেও বিশ্বকাপ ইতিহাসে বল করা প্রথম বোলারের ইতিহাস গড়েন মদন।

উনিশ শতকে বিশ্ব ক্রিকেটের পরাশক্তি ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সে সময় গতি ও বাউন্সের কারণে পুরো বিশ্বেই আতংক সৃষ্টি করেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফাস্ট বোলাররা। এই বোলিং আক্রমণের মূল কারিগর ছিলেন স্যার এ্যান্ডি রবার্টস। ১৯৭৯ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজ মুখোমুখি হলে আসরের প্রথম বলটি করেন তিনি। পুরো ইনিংসে ৯ দশমিক ১ ওভার বোলিং করে ৩২ রানে ২ উইকেট শিকার করেছিলেন রবার্টস।

১৯৮৩ বিশ্বকাপে প্রথম বলটি করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের রিচার্ড হ্যাডলি। ঐ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মত বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। শিরোপা জয়ের পর বিশ্ব ক্রিকেটে বড় দেশে পরিণত হয় ভারত। ইংল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে ৯ জুন মাঠে গড়ায় ১৯৮৩ বিশ্বকাপ। ইংল্যান্ড টস জিতে আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিলে হ্যাডলি আসরের প্রথম বল করার সুযোগ পান।

আইসিসি আয়োজিত চতুর্থ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৭ সালে। ভারত ও পাকিস্তান যৌথভাবে আয়োজন করে এ আসর। হায়দারাবাদে ৮ অক্টোবর ১৯৮৭ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয় শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান। টস জিতে পাকিস্তান আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিলে আসরের প্রথম বল করতে আসেন জন। পুরো ইনিংসে নির্ধারিত ১০ ওভার বোলিং করে ৩১ রান খরচে উইকেট শূন্য ছিলেন জন।

১৯৯২ আসর বিশ্বকাপ ইতিহাসে বড় একটা পরিবর্তন এনেছিল। এ আসরেই ফ্লাডলাইটের অধীনে সাদা বলে রঙ্গীন জার্সিতে বিশ্বকাপ শুরু হয়। যৌথ আয়োজক হিসেবে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচ খেলার সুযোগ দেয়া হয় অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকে। এ বিশ্বকাপে প্রথম বল করার জন্য ম্যাকডারমটকে নির্বাচন করা হয়। নির্ধারিত ১০ ওভার বোলিং করে ৪৩ রানে ২ উইকেট শিকার করে ম্যাচের চিত্র পাল্টে দেন তিনি।

১৯৯২ আসরের পর দ্বিতীয়বারের মত ১৯৯৬ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় রঙ্গিন জার্সিতে। ভারতে অনুষ্ঠিত এ আসরের প্রথম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় আহমেদাবাদের সরদার প্যাটেল স্টেডিয়ামে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টস জিতে ইংল্যান্ড আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিলে আসরে প্রথম বল করে ইতিহাসে না লেখানোর সুযোগ পান কর্ক। ১০ ওভার বোলিং করে মাত্র ৩৬ রান খরচ করেন তিনি।

১৯৭৫-১৯৮৩ সালে এক নাগাড়ে তিন বারের পর চতুর্থবার ১৯৯৯ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পায় ইংল্যান্ড। এ আসরে প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় শ্রীলংকা ও ইংল্যান্ড। আগে ব্যাটিং করতে নামা শ্রীলংকান দুই ওপেনার সনত জয়সুরিয়া-রোশন মহানামা জুটির বিপক্ষ প্রথম বলটি করেন ড্যারেন গফ। উদ্বোধনী ম্যাচে খুব ভাল কিছু করতে পারেননি ইংল্যান্ড বোলার। ৮ দশমিক ৪ ওভার বোলিং করে ৫০ রানের বিনিময়ে মাত্র ১ উইকেট নিতে সক্ষম হন তিনি।

নিখুত বোলিংয়ের জন্য ক্রিকেট ইতিহাসে সেরা ওপেনিং বোলার হিসেবে পরিচিত শন পোলক। ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত ২০০৩ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে দুই শক্তিশালী দল স্বাগতিক ক্যারিবিয় ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ম্যাচে প্রথম বলটি করেন পোলক। মাত্র ৩ রানে জিতেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। ম্যাচে ১০ ওভার বোলিং করে ৫২ রান খরচে ২ উইকেট পেয়েছিলেন পোলক।

পাকিস্তানের হয়ে ফাস্ট বোলার হিসেবে উমর গুলের ছিল অসাধারণ একটি ক্যারিয়ার। বিশ্বকাপের সপ্তম আসরটি বসেছিল ২০০৭ সালে। এ্ই প্রথমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপ আয়োজন করে। ১৩ মার্চ দুই শক্তিশালী দল স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং পাকিস্তান বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ খেলে। টস জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়ে অধিনায়ক ইনজামাম উল হক প্রথম ওভার করতে উমর গুলের হাতে বল তুলে দেন।

২০১১ বিশ্বকাপের প্রথম বলটি করেছিলেন বাংলাদেশের শফিউল ইসলাম। যৌথ আয়োজক হিসেবে ঢাকার শেরে-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আসরের প্রথম ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশের শফিউল ইসলাম ভারতীয় ওপেনার বীরেন্দার শেবাগকে আসরের প্রথম বলটি করেছিলেন। ম্যাচে নির্ধারিত ১০ ওভারের পরিবর্তে শফিউল শেষ পর্যন্ত ৭ ওভার বোলিং করে ৬৯ রানে শিকার করেন ১ উইকেট।

আইসিসি আয়োজিত সর্বশেষ বিশ্বকাপটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৫ সালে। এগারতম বিশ্বকাপের প্রথম বলটি করেছিলেন শ্রীলঙ্কান পেসার নুয়ান কুলাসেকারা। উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল নিউজিল্যান্ড-শ্রীলঙ্কা। নিউজিল্যান্ড প্রথমে ব্যাটিং নিলে শ্রীলঙ্কা অধিনায়ক বোলিং ওপেনিং করতে বল তুলে দেন নুয়ান কুলাসেকারার হাতে।
উদ্বোধনী ম্যাচেই মুখোমুখি ক্রিকেটের দুই জায়ান্ট-ইংল্যান্ড আর দক্ষিণ আফ্রিকা।

এবার ২০১৯ সালে বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর বসেছে কেনিংটন ওভালে। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে টস জিতেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। এরপর বল তুলে দেন ইম্রান তাহিরের হাতে। ম্যাচের দ্বিতীয় বলেই উইকেট নিয়েছেন তিনি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply