ইন্দোনেশিয়ায় নির্বাচনী দায়িত্বের চাপে ৩১৮ কর্মকর্তার মৃত্যু

|

ইন্দোনেশিয়ায় নির্বাচনী দায়িত্বের চাপে মৃত্যু হয়েছে কমপক্ষে ৩১৮ কর্মকর্তার। অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আরও দু’হাজার ২৩২ জন। এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

এলাহী কারবার-বিশেষণটিও যেন কম হয়ে যায় ইন্দোনেশিয়ায় এবারের, নির্বাচনের জটিলতা আর বিশালত্ব বোঝাতে। ১৭ এপ্রিল একসাথে ভোট হয় স্থানীয়, প্রাদেশিক ও জাতীয় পর্যায়ে। প্রতিজন ভোটারকে দিতে হয়েছে পাঁচটি করে ভোট। যে কারণে, ভোটার ২০ কোটি হলেও ভোট পড়েছে প্রায় ১০০ কোটি। ইলেকট্রনিক ভোটিং পদ্ধতি না থাকায়, বিপুলসংখ্যক এ ভোট গুণতে হচ্ছে হাতেই।

আট লাখের বেশি ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেন প্রায় ৬০ লাখ কর্মকর্তা; যাদের বেশিরভাগই বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী। তীব্র গরমে রাত জেগে কাজ করার সময়, অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকে। সরকারী কর্মীদের ওপর এভাবে কাজ চাপিয়ে দেয়ায় প্রশাসনের তীব্র সমালোচনা চলছে দেশটিতে।

গণনার প্রক্রিয়া এতোই জটিল যে, চাপ নিতে না পেরে মারা গেছেন তিন শতাধিক নির্বাচনী কর্মকর্তা। অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, কয়েক হাজার মানুষ।

স্বজনরা বলছেন, লম্বা সময় ধরে ভোট গণনার চাপ সইতে পারেননি অনেক কর্মকর্তা। ১৭ এপ্রিল ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলছে গণনা।

প্রয়াত নির্বাচনী কর্মকর্তার সন্তান মাসনুন বিন্তি আব্দুল হামিদ বলেন, ভোটের কয়েকদিন পর এক শুক্রবার হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন আমার বাবা। শ্বাস নিতে পারছিলেন না তিনি। পা ফুলে গেছিল। হাসপাতালে নেয়ার সাথে সাথে তাকে আইসিইউ-তে ভর্তি করা হয়। পাঁচদিন পর মারা যান তিনি।

চিকিৎসা কর্মকর্তা ড. আরি ফাহরিয়াল সিয়াম বলেন, নির্বাচনের দায়িত্ব পালনকালীন এতো বিপুলসংখ্যক কর্মকর্তার অসুস্থ হয়ে পড়ার কারণ জানার চেষ্টা চলছে। প্রতিকূল কর্মপরিবেশে দীর্ঘ সময় কাজ করতে হচ্ছে। অনেকেই বাইরে রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে কাজ করছেন। কাজের পরিবেশ আসলেই অমানবিক। প্রচণ্ড শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি থেকে এমন অবস্থা হতে পারে।”

নির্বাচন তদারককারী সংস্থার প্রধান আভান বলেন, সহকর্মীদের প্রতি একটাই অনুরোধ। নিজের স্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিন। ভোটগণনার সময় কোনোরকম সমস্যা বা ক্লান্তি অনুভব করলে সাথে সাথে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তার শরণাপন্ন হোন।

মৃত কর্মকর্তাদের পরিবারকে আড়াই হাজার ডলার করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সবকিছু ঠিক থাকলে, ভোটের ৩৪ দিন পর, ২২ মে প্রকাশ হবে ইন্দোনেশিয়ার নির্বাচনের ফলাফল।









Leave a reply