রংপুরে সংঘর্ষের ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি

|

ফেসবুকে ধর্মীয় কটূক্তির অভিযোগে রংপুরের পাগলাপীরে পুলিশের সাথে স্থানীয়দের সংঘর্ষ একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক। বাড়ি-ঘরে আগুন দেয়ার ঘটনাও ঘটেছে। পরিস্থিতি থমথমে। নিয়ন্ত্রণে মোতায়েন রয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। এঘটনায় শুক্রবার রাতে রংপুর সার্কিট হাউস মিলনায়তনে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী আলহাজ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁর উপস্থিতিতে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। রংপুরের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রংপুর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো. রফিকুল ইসলামকে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন-রংপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাইফুর রহমান সাইফ ও রংপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউল ইসলাম। এদিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে টিন ও খাবার প্রদান করা হয়েছে।

ঘটনার শুরু পাঁচ দিন আগে। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার অভিযোগ ওঠে টিটু নামে এক স্থানীয়ের বিরুদ্ধে।স্থানীয়রা প্রথমে পুলিশ এবং পরে জনপ্রতিনিধিদের জানায় বিষয়টি। দেয়া হয় লিখিত অভিযোগও। কিন্তু কেউ গা না করায় জুমার নামাজের পর রাস্তায় নামে মুসল্লিরা। রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের পাগলাপীরে রাস্তা অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধরা। উত্তেজিত লোকজন ভাঙচুরের পর, টিটুর বাড়িতে আগুনও ধরিয়ে দেয়।এক পর্যায়ে পুলিশ রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে অবরোধকারীদের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মৃত্যু হয় হাবিব নামে একজনের। পুলিশের ১১ সদস্যসহ আহত হয় অর্ধশতাধিক। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ৬ জন রংপুর মেডিকেলে ভর্তি।









Leave a reply