নাটোর থেকে অপহৃত শিশু ৪ দিন পরে গাইবান্ধা থেকে উদ্ধার

|

স্টাফ রিপোর্টার, নাটোর

নাটোরের বড়াইগ্রাম থেকে বাবু আহম্মেদ নামে ৯ বছর বয়সী এক শিশুকে অপহরণের ৪ দিন পর গাইবান্ধা থেকে উদ্ধার এবং ৩ অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে নাটোরের ডিবি পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার এবং তিন অপহরণকারীকে গ্রেফতারের পর রাত সাড়ে ১০টার দিকে নাটোরের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে সাংবাদিকদের সামনে উপস্থিত করা হয়। অপহৃত শিশু বাবু আহম্মেদ বড়াইগ্রাম উপজেলার আগ্রান গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে।

নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন জানান, গত প্রায় তিন মাস পূর্বে সিরাজগঞ্জের কড্ডার মোড় এলাকার ইশান আহমেদ সোহাগ নামে এক যুবক নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার আগ্রান গ্রামের সেকেন্দার আলীর স্ত্রী সাহিদা বেগমকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বড় বোন সম্পর্ক পাতায়। পরে ইশান আহমেদ সোহাগ গত ৫ এপ্রিল সিরাজগঞ্জ থেকে বড়াইগ্রামে আসে এবং সাহিদা বেগমের বাড়ীতে উঠে। এরপর দুই দিন সোহাগ তাদের বাড়ীতে বসবাস করে।

গত ৭ এপ্রিল সোহাগ সাহিদা বেগমের ছেলেকে পাশের গ্রামে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়ে চলে যায়। দীর্ঘ সময় তারা আর ফিরে আসে না। এরপর বিকেলে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিশু বাবু আহম্মেদের পরিবারের কাছে মোবাইল ফোনে তিন লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করেন।

বিষয়টি তারা পুলিশকে জানালে নাটোরের ডিবি পুলিশ মোবাইল ফোন ট্যাকিং করে গাইবান্ধা পুলিশের সহযোগীতায় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের একটি বাড়ী থেকে অপহত শিশু বাবু আহম্মেদকে উদ্ধার করে এবং অপহরণকারীদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের রোহাবাড়ী গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে ইশান আহমেদ সোহাগ, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের লালচামার আদর্শ গ্রামের নজরুল ইসলামের স্ত্রী মোছাঃ নুরজাহান ও পলাশবাড়ীর সাঁতারপাড়া এলাকার পাপলু ওরফে সুরনের স্ত্রী নার্গিস আক্তার।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply