দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনেও নেই ভোটারদের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ

|

দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনেও দেখা যায়নি ভোটারদের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ। ভোটদানে উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম। হাতেগোনা উপস্থিতির মধ্যে সকাল আটটায় শুরু হয়ে, ভোটগ্রহণ চলে বিকাল চারটা পর্যন্ত। এখন চলছে ভোট গণনা। এরমধ্যেও আসতে থাকে জালিয়াতিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ। যদিও নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হওয়ার দাবি প্রশাসনের।

এ যেন প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনেরই প্রতিচ্ছবি। কেন্দ্রে দেখা নেই, সারিবদ্ধ ভোটারের। বেশিরভাগ কেন্দ্রেই হাতে-গোনা উপস্থিতি নিয়ে শুরু হয় দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ।

বেলা বাড়লেও পরিস্থিতি বদলায় না খুব একটা। মৌলভীবাজারের আলাউদ্দিন স্কুল কেন্দ্রে, শুরুর পাঁচ ঘণ্টায় ভোট পড়ে মাত্র ২২টি। ভোট দিতে তেমন আগ্রহ ছিল না নারী ভোটারের। অলস সময় কাটাতে দেখা গেছে নির্বাচন কর্মকর্তাদের। তবে ভোটের পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভোটাররা।

জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে ভোটারের অনীহার মধ্যেই আসতে থাকে জাল ভোট ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ। রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি, নানিয়ারচর ও কাউখালিতে ভোট বর্জণ করেন বেশ কয়েকজন প্রার্থী। জালভোট দেয়ায় ঘটনায় সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা থেকে আটক হয় ৬ জন।

রংপুরের তারগঞ্জ উপজেলার জগতিশপুর কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ার সময় ক্যামেরা দেখে সটকে পড়ে এক নারী। পীরগাছার কয়েকটি কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ ওঠে। যদিও ভোটগ্রহণের পরিবেশ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ দাবি করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পুলিশ।

তিন পদেই একক প্রার্থী থাকায় দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ভোট হয়নি ছয় উপজেলায়। এছাড়া চেয়ারম্যান পদে ২৩, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৩ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ১২ জন।









Leave a reply