বিক্ষোভ মিছিলে নেই ভিপি নুর ও লিটন নন্দী

|

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন বাতিল এবং পুনঃতফসিল ঘোষণার দাবিতে ভোট বর্জন করা ৫ প্যানেলের আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করলেও বিক্ষোভ মিছিলে ছিলেন না ঢাকসু ভিপি নুরুল হক নুর ও বাম জোটের নেতা লিটন নন্দী।এ নিয়ে আন্দোলনকারীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী আজ সোমবার বেলা ১২ দিকে রাজু ভাস্কর‌্য থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে ৫ প্যানেলের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন, গ্রন্থাগার, মধুর ক্যান্টিন, ব্যবসা অনুষদসহ বিভিন্ন সড়ক ঘুরে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

মিছিলে নেতৃত্ব দেন স্বতন্ত্র ভিপি প্রার্থী অরণি সেমন্তি খান, স্বতন্ত্র জিএস প্রার্থী এ.আর.এম. আসিফুর রহমান, সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের জিএস প্রার্থী মোহাম্মদ রাশেদ খান, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন প্যানেল থেকে জিএস পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী উম্মে হাবিবা বেনজির, প্রগতিশীল ছাত্রজোটের জিএস প্রার্থী জিএস প্রার্থী ফয়সাল মাহবুব। কিন্তু মিছিলে ছিলেন না ভিপি নুরুল হক নুর ও বাম জোটের নেতা লিটন নন্দী।পরে তাদের সংগঠনের নেতাকর্মীরা জানান, পরিবারের সদস্যের অসুস্থতার কারণে দু’জনই মিছিলে আসতে পারেননি। নুরের বোন অসুস্থ। আর লিটন নন্দীর মায়ের রক্তচাপ বেড়ে গেছে বরে জানা গেছে।

এদিকে মিছিল শেষে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আন্দোলনকারীরা ভিসির কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সঙ্গে দেখা করার অনুমতি না মেলায় তারা কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশ করতে পারেননি।

সেখানে বক্তৃতায় ৫ প্যানেলের নেতারা বলছেন, ৫ দফা দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। দাবিগুলো হচ্ছে- জালিয়াতির ডাকসু নির্বাচন বাতিল, পুনঃতফসিল ঘোষণা, ব্যর্থ ভিসির অপসারণ, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও হামলাকারীদের ডাকসু আর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার।

এর আগে রোববার সন্ধ্যায় মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করে পাঁচ প্যানেলের পক্ষ থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হয়। এ আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করেন ডাকসুর নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরও।পাশাপাশি বাম জোটও আলাদাভাবে একই কর্মসূচি ঘোষণা করে।









Leave a reply