নিঃসঙ্গতা কাটিয়ে সংসদে ‘মুনা’, ‘বাকের ভাই’য়ের উচ্ছ্বাস

|

জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ও নাট্যকার হুমায়ূন আহমেদের ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকের কথা নিশ্চয় মনে আছে? দেশের মানুষকে দারুণভাবে সম্মোহিত করা সেই নাটকের আলোচিত চরিত্র বাকের ভাইয়ের ফাঁসি হয়ে যায় এক মিথ্যা মামলায়। এতে, নাটকের আরেক শক্তিশালী চরিত্র মুনা নিঃসঙ্গ নায়িকায় পরিণত হয়। অবশেষে, নিঃসঙ্গতা ঘুচেছে মুনার। সংসদে এসে বাকের ভাইকে খুঁজে পেয়েছেন তিনি!

বলা হচ্ছে, ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকের দুই অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর ও সুবর্ণা মুস্তফার কথা। একাদশ সংসদ নির্বাচনে টানা চতুর্থবারের মতো সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন নূর। অন্যদিকে, সংরক্ষিত নারী আসনে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য হয়েছেন সুবর্ণা। সোমবার রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনাও করেছেন ‘মুনা’ খ্যাত সুবর্ণা।

দু’দিন পর বুধবার আলোচনার জন্য দাঁড়িয়ে ৩০ বছর আগে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত তুমুল জনপ্রিয় নাটক ‘কোথাও কেউ নেই’ এর প্রসঙ্গ তুললেন ‘বাকের ভাই’ হিসেবে তুমুল জনপ্রিয়তা পাওয়া আসাদুজ্জামান নূর। নাট্য জগতের সহকর্মী সুবর্ণা মুস্তাফাকে সংসদ সদস্য করে আইনসভায় আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘আমি একটু ৩০ বছর পেছনে চলে যেতে চাই। আজ আমি নস্টালজিক।’

‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘সেই নাটকে বাকের ভাইয়ের ফাঁসি হয়। মুনা নিঃসঙ্গ নায়িকায় পরিণত হয়। তবে আজকে তিনি আর নিঃসঙ্গ নন। তিনি আজকে এই মহান সংসদে সাড়ে তিনশ’ মাননীয় সংসদ সদস্যের সঙ্গে বসে আছেন। এবং সেই বাকের ভাই চরিত্রে অভিনয় করেছিলাম আমি, আপনার সামনে দাঁড়িয়ে আছি।’

সংসদে বক্তব্য রাখছেন ‘মুনা’ খ্যাত সুবর্ণা মুস্তফা।

এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান আসাদুজ্জামান নূর। বলেন, এই যে ঘটনাটি ঘটল হুমায়ূন আহমেদ তার নাটকে করতে পারেননি। আজকে বাস্তবে এটা সম্ভব হয়েছে। সেই চরিত্রে যে অভিনয় করেছন- অসাধারণ শিল্পী সুবর্ণা মুস্তাফা আজকে আমাদের সংসদ সদস্য। এবং এই সুযোগটি করে দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। আমি আমার পক্ষ থেকে,শিল্পী সমাজের পক্ষ থেকে তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই।

এ সময় অধিবেশন কক্ষে উপস্থিত ছিলেন সুবর্ণা মুস্তাফা। নূরের বক্তব্যের সমর্থনে তাকে হাসতে দেখা যাচ্ছিল।

উল্লেখ্য, হুমায়ূন আহমেদ রচিত ও বরকত উল্লাহ পরিচালিত ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকে ‘বাকের ভাই’য়ের ফাঁসি হলে তার প্রতিবাদে রাস্তাঘাট আটকে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছিল অনেক দর্শক। এমনকি বাকের ভাইয়ের কুলখানিও আয়োজন করেছিল অনেক অনুরাগী। বাংলা নাটকের ইতিহাসে এটি একটি বিরল ঘটনা।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply