মেহেরপুরে ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়েই চলছে ভারি যানবাহন

|

রামিজ আহসান:

সর্বোচ্চ ধারণ ক্ষমতা ৫ টন, অথচ প্রতিনিয়তই চলছে ২০ থেকে ৪০ টন মালবোঝাই যানবাহন। মেহেরপুর-কুষ্টিয়া সড়কের আলমপুর সেতুটি সড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেওয়া হলেও তা মানছেননা কেউই।

যেন সাইনবোর্ড দিয়েই দায় সেরেছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। বোর্ডের ৫ টনের অধিক যানবাহন চলাচলের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছে না কেউ। ৫৪ বছরের পুরানো সেতুটি দেবে যাওয়ায় ফাটল ধরেছে সেতুর বিভিন্ন অংশে। যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে বসানো হয়েছে সেতুর উপর একটি বেইলি ব্রিজ। ভারী যানবাহন চলাচলে দেওয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। কিন্তু প্রতিনিয়তই সেতুর উপর দিয়ে চলছে পাথর, রড, সিমেন্ট বোঝাই ২০ থেকে ৪০ টনের বেশি মালবাহী ট্রাক। ফলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

বিকল্প সড়ক দিয়ে যেতে সময় ও জ্বালানি তেল লাগছে বেশি। তাই ঝুঁকি নিয়ে তারা এ সেতুর উপর দিয়ে চলাচল করছেন বলে দাবি চালকদের। যাত্রীবাহী বাস চালকরাও রয়েছে চরম আতংকে। ছেলেমেয়ে স্কুলে পাঠানো নিয়েও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে অভিভাবকেরা।

নতুন সেতু নির্মাণের জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। চলতি অর্থবছরের মধ্যেই ব্রিজের নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে জানালেন সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জিয়াউল হায়দার।

সেতুর উপর দিয়ে যাতে ভারি যানবাহন চলাচল না করতে পারে সেজন্য ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে পুলিশ বিভাগকে। এছাড়াও ট্রাক ও বাস মালিক গ্রুপের নেতাদেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক আতাউল গনি।









Leave a reply