৬ বছরে গাজা উপত্যকায় ৯ হাজার কোটি টাকা অনুদান দিয়েছে কাতার

|

গত ছয় বছরে গাজা উপত্যকায় হামাসের সরকার পরিচালনার জন্য সংগঠনটিকে ১ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার (প্রায় ৯ হাজার ২২৫ কোটি টাকা) অনুদান দিয়েছে কাতার।

ইসরাইয়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর সাথে কাতারি রাজপরিবারের এক সমঝোতার মাধ্যমেই এই বিশাল পরিমাণ অর্থ ফিলিস্তিনি এই উপত্যকায় প্রবেশের সুযোগ পেয়েছে। এই অর্থ হামাস সরকারের কর্মকর্তা কর্মচারিদের বেতন ভাতা, গাজার অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং জ্বালানি খাতে খরচ হয়েছে।

কাতারি অনুদান আগামী বছরগুলোতেও অব্যাহত থাকবে। চলতি ২০১৯ সালে আরও কয়েকশ মিলিয়ন ডলার দোহা থেকে গাজা উপত্যকায় প্রবেশ করবে বলে জানিয়েছে ইসরায়েলি পত্রিকা হারেৎজ। অনুদানের টাকার ৪৪ শতাংশ অবকাঠামো খাতে, ৪০ শতাংশ শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে এবং বাকিটা হামাস ও অন্যান্য সংগঠনগুলোর পেছনে খরচ হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

গাজায় শরণার্থীদের জন্য পরিচালিত জাতিসংঘের মিশনে গত বছর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের অনুদান দেয়া বন্ধ ঘোষণার পর মিশনটি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল। এমতাবস্থায় তাতে ৫০ মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়ে সেটিকে টিকিয়ে রাখে কাতার। এছাড়া জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থাগুলোতে আরও ৫০০ মিলিয়ন ডলার অনুদান দেয়ার জন্য চুক্তি করেছে মধ্যপ্রাচ্যে ক্ষুদ্র দেশটি।

এর ফলে গাজার ১ লাখ ৮০ হাজার বাসিন্দা চাকরি অন্যান্য সুবিধা প্রদান সম্ভব হবে। হামাস সরকারকে এত বিশাল সহায়তা প্রদানের সমালোচনা করে আসছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। তার দল ফাতাহ আন্দোলনকে আগের দেয়া সহায়তা প্রায় বন্ধই করে দিয়েছে দোহা।

২০১৭ সাল থেকে ফিলিস্তিনসহ আরব দেশগুলো সহায়তার পরিমাণ বাড়িয়েছে কাতারি রাজপরিবার। ২০১১ সালে আরব দেশগুলোর জন্য ১০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করলেও ২০১৭ তে এসে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৭০০ মিলিয়ন ডলারে।









Leave a reply