ছাত্রীদের নগ্ন ছবি তুলে যৌন হয়রানি, লম্পট শিক্ষক আটক

|

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর:

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের ১১৪ নং পূর্ব জায়গীর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আঃ কাদেরকে আটক করেছে পুলিশ। ওই বিদ্যালয়ের ৩য় থেকে ৫ম শ্রেনীর ৭/৮ জন ছাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুক্রবার বিকেলে জায়গীর গ্রাম থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

নির্যাতিত ছাত্রীরা ও অভিভাবকরা প্রধান শিক্ষক মুহিত চৌধুরীর কাছে বিষয়টি বারবার জানিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি বলে জানা গেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, জেলার কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের ১১৪ নং পূর্ব জায়গীর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আঃ কাদের বিগত দুই বছর যাবত স্কুলটিতে যোগ দেয়। যোগ দেয়ার পর থেকেই তিনি সুযোগ বুঝে ৩য় থেকে ৫ম শ্রেনীর ছাত্রীদের স্কুলের লাইব্রেরিতে ডেকে নিতেন। তাদের শরীরের বিবস্ত্র ছবি তুলে রেখে তাদের সাথে বছরের পর বছর যৌন হয়রানি করছিলেন। শরীরের স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দিতেন বলে কালকিনি থানায় লিখত অভিযোগ করেন এক মেয়ের অভিভাবক। সে স্কুলের একটি রুমে থাকতেন। সে উপজেলার পাঙ্গাশিয়া গ্রামের মৃত মোহাম্মাদ আলির ছেলে।

অভিযোগকারী বলেন, শিক্ষক কাদের ৩য় থেকে ৫ম শ্রেনীর ছাত্রীদের টিফিনের সময় লাইব্রেরি নিয়ে বিবস্ত্র ছবি তুলতেন। পরে যৌন নির্যাতন করতো। একাধিক মেয়ের সাথে এ ঘটনা জানলেও প্রধান শিক্ষক নিশ্চুপ ছিল। ফলে অনেক মেয়ে তার যৌন নির্যাতনে আক্রান্ত হয়। আজ ৮ জন মেয়ে ও তার অভিভাবকেরা ইউএনও ও ওসি’র কাছে গিয়ে অভিযোগ করলে পুলিশ কাদেরকে আটক করে।

কালকিনি থানার ওসি মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, একাধিক ছাত্রী ও অভিভাবকদেও অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় শিক্ষক কাদেরকে আটক করা হয়েছে।









Leave a reply