পছন্দের মেয়েকে বিয়ে করতে না দেয়ায় পিতাকে হত্যা, ছেলের ফাঁসি

|

ময়মনসিংহ ব্যুরো
প্রথম দেখেই এলাকার এক মেয়েকে ভালোবেসে ফেলেন গফরগাঁওয়ের ডুবাইল গ্রামের যুবক শরীয়তউল্লাহ। একসময় নিজের পছন্দের কথা বাবাকে জানান তিনি। কিন্তু পিতা ইব্রাহিম খলিউল্লা বিয়েতে রাজি হননি। রাগে ভালোবাসার পথে বাধা বাবাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে প্রেমিক শরীয়তউল্লাহ। ঘটনা ২০০৫ সালে ১৩ মার্চ।

পরে নিহতের ছেলে সাদিকুল্লাহ বাদী হয়ে গফরগাঁও থানায় ভাই শরীয়তউল্লাহকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বুধবার দুপুরে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার মামলায় ফাঁসির আদেশ দেন ময়মনসিংহের অতিরিক্ত দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো.নূরুল আমিন বিপ্লব।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী রেজাউল করিম খান বলেন, নিজের পছন্দের মেয়েকে বিয়ে করতে না দেওয়ায় ২০০৫ সালের ১৩ই মার্চ মধ্যরাতে শরীয়তউল্লাহ তার বাবা ইব্রাহিম খলিউল্লাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে এসময় তার মা নাসিমা খাতুন বাধা দিতে গেলে সেও আহত হয়। পরে স্বজনরা ইব্রাহিম খলিউল্লাকে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে ১৪ই মার্চ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

দুপুরে আসামির উপস্থিতিতে অতিরিক্ত দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো.নূরুল আমিন বিপ্লব আসামী শরীয়তউল্লাহকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন।

এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করার কথা জানিয়েছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী সরকার আনোয়ারুল কবীর।









Leave a reply