নিখোঁজের ৪ মাস পর ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় কিশোরী উদ্ধার

|

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীর  হাতিয়ায় নিজ বাড়ি থেকে নিখোঁজের প্রায় ৪ মাস পর রাহেনা আক্তার (১৪) নামের এক কিশোরীকে চট্টগ্রামের কালুরঘাট ব্রিজের নিচ থেকে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সোমবার সন্ধ্যায় মাইজদী থেকে সুমন, সাহাবুদ্দিন, রিনা, আলেয়া নামে ৪ জনকে আটক করেছে সুধারাম মডেল থানা পুলিশ। উদ্ধারকৃত রাহেনা আক্তার হাতিয়া উপজেলার চর নঙ্গেলিয়া গ্রামের এনায়েত উল্যার বাহারের মেয়ে।

ভিকটিমের মা সামছুন নাহার বলেন, প্রায় ৪ মাস আগে তিনি বাড়ির বাইরে থাকার সুযোগে প্রতিবেশী জামাল উদ্দিনের মেয়ে রিনা আক্তার রাহেনাকে কাজ দেয়ার কথা বলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

বাড়িতে এসে রাহেনাকে না পেয়ে, বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেন তিনি। তার বড় ছেলের শাশুড়ি জানান, রিনা বাড়ি থেকে রাহেনাকে নিয়ে গেছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা জিজ্ঞাসা করলে, রিনা তা অস্বীকার করে।

সামছুন নাহার আরও বলেন, গত রবিবার রাতে অজ্ঞাত ব্যক্তি ফোন করে রাহেনার অবস্থান জানায়, তারা চট্টগ্রামের কালুরঘাট ব্রিজের নিচ থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় রাহেনাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী নিয়ে আসে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাহেনা জানান, গত ৪ মাস রিনার মামী আলেয়া আক্তার মাইজদী বাসায় রেখে তাকে মারধর করে। ব্লেড দিয়ে পুরো শরীরে আঁচড় দেয়, কখনো গরম পানি ঢেলে দেয়, এসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। সবশেষ রবিবার রাতে একটি গাড়িতে করে তাকে চট্টগ্রামের কালুরঘাট ব্রিজের কাছে নিয়ে ফেলে দেয়।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের মেডিকেল অফিসার শ্যামল কুমার দেবনাথ জানান, ভিকটিমের শরীরের বিভিন্ন অংশে ক্ষত রয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা স্থানান্তর করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান, তিনি হাসপাতালে গিয়ে ভিকটিমকে দেখে এসেছেন। প্রাথমিক অভিযোগের ভিত্তিতে রিনা, সুমন, সাহাবুদ্দিন ও আলেয়া নামে ৪ জনকে আটক করা হয়েছে।









Leave a reply