একাদশ জাতীয় সংসদ গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রায় মাইল ফলক: স্পিকার

|

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুরঃ
একাদশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সমগ্র বিশ্বে উন্নয়নের বিস্ময় হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি বাংলাদেশকে ভিশনের মধ্য দিয়ে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। সেটা হচ্ছে ২০২১ এর মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ, ২০২৪ এর মধ্যে উন্নয়নশীল দেশ আর ২০৪১’র মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। এই লক্ষ্যে আমরা অনেকটা এগিয়েছি। আশা করি আগামীতে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

শুক্রবার রাতে জেলার শিবচর চৌধুরী ফাতেমা বেগম পৌর অডিটোরিয়ামে এক নাগরিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এসব কথা বলেন।

স্পিকার আরও বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এগিয়ে নিতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে। যে আশা প্রত্যাশা নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীসহ সংসদ সদস্যদের জনগন ভোট দিয়েছে সেই আস্থা মর্যাদা নিয়ে আমরা দায়িত্ব পালন করবো। এই প্রত্যয় নিয়েই একাদশ জাতীয় সংসদ এগিয়ে যাবে। একাদশ জাতীয় সংসদ বাংলাদেশের গণতন্ত্রের অব্যাহত অগ্রযাত্রার অনন্য এক মাইল ফলক।

এর আগে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জেলার শিবচরে শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মরহুম ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত করেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী , ডেপুটি স্পিকার মোঃ ফজলে রাব্বি মিয়া, চিফ হুইপ নূর ই আলম চৌধুরী।

এসময় হুইপ মোঃ আতিউর রহমান আতিক, পঞ্চানন বিশ্বাস, ইকবালুর রহিম, মাহবুব আরা বেগম গিনি , সামশুল হক চৌধুরী, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন উপস্থিত ছিলেন। পরে রাতে আয়োজিত নাগরিক সভায় বিভিন্ন শ্রেনী পেশার নেতৃবৃন্দ স্পিকারসহ অতিথিদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ রেজাউল করিম তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নাগরিক সভায় এছাড়াও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিয়াজ উদ্দিন খান, জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাবুদ্দিন মোল্লা, সিনিয়র সহসভাপতি মুনির চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সামসুদ্দিন খান, সাধারন সম্পাদক ডাঃ মোঃ সেলিম, পৌর আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।









Leave a reply