ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মঘাতী সেই চিকিৎসকের স্ত্রী আটক

|

স্ত্রীর ‘অনৈতিক’ সম্পর্কের খবর ফেসবুকে পোস্ট করে আত্মঘাতী সেই চিকিৎসকের স্ত্রী ডা. তানজিলা হক চৌধূরী মিতুকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে তার আত্মীয়র বাসা থেকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ আটক করে। মিতুর বিরুদ্ধে আত্মহত্যা প্ররোচনার অভিযোগ আনা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

এর আগে বৃহস্পতিবার ভোরে চট্টগ্রামের চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার ভাড়া বাসা থেকে ডা. মো. মোস্তফা মোরশেদ আকাশের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেলে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বৃহস্পতিবার ভোর ৪টা ২৬ মিনিটে ফেসবুক একটি পোস্ট করেন ডা. আকাশ। তাতে স্ত্রী ডা. তানজিলা হক চৌধূরী মিতুর সাথে পরিচয় এবং বিয়ের বিষয়ে বিস্তারিত জানান। সাথে বেশ কিছু ছবি ও ভিডিও পোস্ট করেন। তাতে মিতুর সাথে অন্য পুরুষের ঘনিষ্ঠ ছবি এবং মোবাইলে আদানপ্রদান করা কিছু টেক্সট মেসেজের স্ক্রিনশটও রয়েছে।

দীর্ঘ পোস্টের শেষের দিকে ডা. আকাশ লিখেছেন–

“আমার শাশুড়ী দায়ী এসবের জন্য, মেয়েকে আধুনিক বানাচ্ছে। একটু বেশি বানিয়ে ফেলেছে। উনি চাইলে এখনো সমাধান হত।

“ও মা তুমি মাফ করে দিও তোমার স্বপ্ন পূরন করতে পারলাম না। মায়ের ভালবাসার কখনো তুলনা চলে না।”

“বারবার বলছি ভাল না লাগলে আলাদা হয় যাও, চিট করো না, মিথ্যা বলো না, বিশ্বাস ভাঙ্গিও না।”

হাজার হাজার ছবি আছে, আরো খারাপ খারাপ, দিলাম না যারা বিলিভ করবে এতেই করবে, না করলে নাই।

আমি শেষ পর্যন্ত চেয়েছি চুপ থেকে সব সমাধান করে ওকে নিয়ে থাকতে। আমার শ্বশুর-শাশুড়ীকে বারবার বলছি, উনারা সমাধান করতে পারত! আমার মৃত্যুর জন্য দায়ী আমার বউ। ৯টা বছর যাকে শতভাগ ভালবাসছি, ওকে প্ররোচনা দিয়েছে মইন মিথি নামে দুই ফ্রেন্ড। ওর মা বাবা আমাকে মানসিক কষ্ট দিয়ে মারছে। আমি এই বেঈমানি মেনে নিতে পারিনি।তারপরও সব ভুলে আমি সুন্দর সংসার করতে চেয়েছি। আমার শাশুড়ি আর বউ নামের কলংক করতে দিল না। আমাকে প্রতিনিয়ত চাপ দিয়ে গেছে। আমার বউ আমার মার নামে যা তা বলে গেছে। আমাকে ভাল না লাগলে ছেড়ে চলে যেতে বলছি ১০০ বার। অনেকে ওর ফ্যান, বিলিভ করবে না। তবে মরার আগে কেউ মিথ্যা বলে না। ও সুন্দরী, লেখাপড়ায় ভাল, গান পারে। কিন্তু ও ভাল অভিনেত্রী, ভাল চিটার। যাদের ইচ্ছা বিলিভ কবে যাদের ইচ্ছা নাই করবে না। তবে কাউকে ভালবেসে চিটারগিরি করোনা।”









Leave a reply