শব্দ দূষণ বন্ধে সচেতনতা ‘হর্ন হুদাই বাজায় ভুদাই’

|

প্রতিনিয়তই আমাদের স্বাভাবিক কার্যক্রমে বাধা তৈরী করছে চারপাশের অতিরিক্ত শব্দ দূষণ। আর এই শব্দ দূষণের অধিকাংশই আসে যানবাহন থেকে। রাস্তায় কারনে অকারনে প্রায়ই হর্ন বাজাতে দেখা যায় নগরীর অধিকাংশ যানবাহনের চালকদের।

আর এই হর্নের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয় শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ ব্যক্তিরা। কিন্তু কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে চালকরা প্রায়ই উচ্চস্বরে হর্ন  বাজাতে থাকেন বিভিন্ন স্কুল, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং হাসপাতালের সামনে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভাষ্য মতে, ৬০ ডেসিবলের থেকে অধিক মাত্রার শব্দ মানুষকে সাময়িকভাবে বধির করে দিতে পারে এবং ১০০ ডেসিবলের থেকে অধিক শব্দে দীর্ঘসময় অতিবাহিত করলে স্থায়ীভাবে শ্রবণ শক্তি কমে যেতে পারে।
কিন্তু কয়েকটি স্টাডিতে দেখা গেছে, ঢাকা শহরের বেশ কিছু পয়েন্টে শব্দের মাত্রা ৭০ থেকে ১২০ ডেসিবল পর্যন্ত উঠানামা করে।

যত্রতত্র চালকদের হর্ন বাজানো থেকে বিরত রাখতে আজ রাজধানীর ধানমন্ডি ২৭ এলাকায় ‘হর্ন হুদাই বাজায় ভুদাই’ লিখা প্ল্যাকার্ড হাতে দেখা মিললো সচেতনতা মূলক প্রচারণা।

অসাধারণ এ উদ্যোগের উদ্যেক্তা তরুণের নাম মমিনুর রহমান রয়েল। ‘রয়েলের ছবি’ নামে একটি ফেসবুক পেজ থেকে তিনি এই সচেতনতা মূলক প্রচার প্রচারণা চালান।

গতকাল তাদের ফেসবুক পেজের মাধ্যমেই তারা আজ ধানমন্ডিতে এই উদ্যোগ বাস্তাবায়নের কথা জানান। সে অনুযায়ী আজ ধানমন্ডিতে দেখা মেলে তাদের সচেতনাতা মূলক এই কার্যক্রমের।

হর্ন বাজানো থেকে নিরুৎসাহিত করে লিখা এ প্ল্যাকার্ড নিয়ে তিনি রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন প্রতিটি গাড়ির পাশে।









Leave a reply