বগুড়ায় মহাসচিবের সঙ্গে বিএনপি নেতার বিতণ্ডার ছবি নিয়ে বিতর্ক-বিভ্রান্তি

|

বগুড়া ব্যুরো

বগুড়ায় যাত্রাবিরতির সময় মহাসচিবের সাথে স্থানীয় জেলা বিএনপির’ সভাপতি সাইফুল ইসলামের কয়েকটি ছবি নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে সাইফুল ইসলামের জ্যাকেট ধরেছেন মির্জা ফখরুল।

এদিকে গণমাধ্যমে আসা বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে বগুড়া বিএনপির সভাপতির ‘বাকবিতণ্ডা’র ছবির ব্যাখ্যা দিয়েছে জেলা বিএনপি। জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম দাবি করেছেন, মহাসচিবের সঙ্গে তার কোনো বাকবিতণ্ডা হয় নি, স্থানীয় আরেক নেতার সঙ্গে তিনি তর্কে জড়ালে মহাসচিব তাদের দুজনকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেছিলেন। সেই ঘটনার খণ্ডিত অংশ গণমাধ্যমে ভিন্নভাবে প্রচার হচ্ছে বলে দাবি এই বিএনপি নেতার।

বুধবার নিজ জেলা ঠাকুরগাঁও থেকে ফেরার পথে দুপুরে বগুড়ার একটি হোটেল যাত্রাবিরতি দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরে তিনি সেখানে দলীয় নেতাকর্মী ও গণমাধ্যমের সাথে কথা বলে আবার ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। বিকেলে একটি গণমাধ্যমে ওই হোটেলের একটি লিফটে দাঁড়ানো বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে কয়েকজন নেতা কথা বলছেন-এমন ছবি প্রকাশ করে উল্লেখ করা হয়-তারা বাকবিতণ্ডায় জড়িয়েছেন।

জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম যমুনা নিউজকে জানান, ওই ঘটনার যে ছবি প্রকাশ করা হয়েছে, তার ভুল ব্যাখ্যা দাঁড় করিয়েছে গণমাধ্যম। তিনি বলেন, ‘মহাসচিব মতবিনিময় সভায় যোগ দিতে হোটেলের লিফটে উঠছিলেন। এসময় সাংগঠনিক একটি বিষয় নিয়ে জেলা কমিটির এক নেতার সঙ্গে আমার বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। আমরা দুজনেই উত্তেজিত ছিলাম। তাই মহাসচিব দুজনের মাঝে দাঁড়িয়ে এবং আমাকে নিজের দিকে টেনে নিয়ে আমাদের শান্ত করার চেষ্টা করছিলেন। এরপরই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় এবং সবাই একসাথে মতবিনিময় সভায় অংশ নিই। কিন্তু ঘটনার সময় মোবাইলে তোলা ছবি নিয়ে গণমাধ্যম বিষয়টির ভিন্ন ব্যাখ্যা দাঁড় করিয়েছে।

ঘটনার সময় লিফটের কাছে উপস্থিত জেলা বিএনপির কয়েকজন নেতা জানান, মহাসচিবের মতবিনিময় সভার ভেন্যু নির্ধারণ নিয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হচ্ছিলো। একপর্যায়ে তারা উত্তেজিত হয়ে পড়লে মহাসচিব দুই জনের মাঝে অবস্থান নিয়ে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। এর বাইরে সেখানে কিছু ঘটে নি।

এদিকে, বিকেলেই জেলা বিএনপির সভাপতি স্বাক্ষরিত একটি বিবৃতিতে, গণমাধ্যমে মহাসচিবের সঙ্গে জেলা বিএনপি নেতাদের বাকবিতণ্ডা সংক্রান্ত সংবাদের প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।









Leave a reply