মন্ত্রিত্ব নেই মুহিতের পাশেও নেই কেউ

|

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) খেলা দেখতে সিলেট এসেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। শুক্রবার তিনি বিমানে সিলেটে পৌঁছান। বিমান থেকে নামার পর বর্ষীয়ান নেতা মুহিতকে হুইলচেয়ারে করে আনা হয় ভিভিআইপি লাউঞ্জে।

মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর মুহিতের এটাই প্রথম সিলেট সফর। এ সময় তাকে এগিয়ে আনতে সিলেটের কোনো আওয়ামী লীগ নেতাকেই বিমানবন্দরে দেখা যায়নি। অথচ মুহিত মন্ত্রী থাকাবস্থায় সিলেট সফরের খবর আসলেই বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে নেতাকর্মীরা গিজ গিজ করতেন। মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পরই দ্রুত এই চিত্র পাল্টে যায়।

অথচ প্রতাপশালী অর্থমন্ত্রী মুহিতকে ঘিরে সবসময়ই আনাগোনা ছিল সিলেটের সুবিধাভোগী চক্রের। এদের অনেকেই গত ১০ বছরে তাদের আখের গুছিয়েছেন। সরকারি বিভিন্ন অফিসে প্রভাব বিস্তার, তদবির, নিয়োগ বাণিজ্য এবং ঠিকাদারিসহ অনেকভাবেই ফায়দা লুটেছেন। কিন্তু মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়তেই সেই সুবিধাভোগীরাও সটকে পড়েছেন মুহিতের কাছ থেকে।

শুক্রবার দুপুর দেড়টায় নভোএয়ারের একটি ফ্লাইটে করে সিলেট এমএজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান মুহিত। পরে সেখান থেকে সরাসরি সিলেট সিক্সার্সের প্রধান পৃষ্ঠপোষক মুহিত স্টেডিয়ামের উদ্দেশে রওনা হন।

পুরো খেলায় গ্যালারিতে বসে নিজের দলকে সমর্থন জানাতে দেখা যায় সাবেক এই প্রভাবশালী মন্ত্রীকে। বিপিএলের ফ্যাঞ্চাইজি সিলেট সিক্সার্সের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রয়েছেন মুহিতের ছেলে সাহেদ মুহিত।

মুহিতকে দিয়ে আর ‘ফায়দা হাসিল’ হবে না এমনটা বুঝেই তারা কেটে পড়েছেন ইতিমধ্যে। শুক্রবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিটের দিকে নভোএয়ারের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে সিলেট আসেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বিমান থেকে নেমে হুইলচেয়ারে করে তাকে নিয়ে আসা হয় ভিআইপি লাউঞ্জে। জনশূন্য ভিআইপি লাউঞ্জ তখন অনেকটা অপরিচিতই মনে হচ্ছিল মুহিতের কাছে।

চিরচেনা পরিচিতমুখগুলো দেখতে না পেয়ে অনেকটা হতাশই মনে হচ্ছিল মুহিতকে। এত দিন যাদেরকে ‘কাছের মানুষ’ হিসেবে জানতেন তাদের মুখোশের অন্তরালের চেহারাটা হয়তো তখন ভাসছিল তার মনোচোখে।

তবে তথাকথিত সেই ‘কাছের মানুষদের’ মধ্যে একমাত্র ব্যতিক্রম ছিলেন বাফুফের কার্যনির্বাহী সদস্য ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম।

ভিআইপি লাউঞ্জের গেটে একমাত্র তিনিই রিসিভ করেন মুহিতকে। পরে সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত বিমানবন্দর থেকে চলে আসেন সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। সেখানে বসে দেখেন সিলেট সিক্সার্স ও ঢাকা ডায়নামাইটসের ম্যাচ।









Leave a reply