পোশাক শ্রমিকদের মজুরি কাঠামো সমন্বয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

|

পোশক শ্রমিকদের চলমান বিক্ষোভে পোশাকখাতে যৌক্তিক হারে তিন গ্রেডের মজুরি সমন্বয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩, ৪ ও ৫ নম্বর গ্রেডের সঙ্গে ১ ও ২ নম্বর গ্রেডের মজুরি সমন্বয়ের এ নির্দেশ দিয়েছেন।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সংশ্লিষ্টদের ঐক্যমতের ভিত্তিতে শ্রমিকদের স্বার্থে ৩, ৪ ও ৫ নম্বর গ্রেডে মজুরি সমন্বয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ফলে মজুরি সমন্বয় হলে প্রতিটি গ্রেডেই যৌক্তিক হারে মজুরি বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

রোববার শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান মজুরি ঘোষণা দেয়ার কথা রয়েছে।

মজুরি কাঠামোর ৩, ৪ ও ৫ নম্বর গ্রেডের সাথে ১ ও ২ নম্বর গ্রেডের সমন্বয়ের মাধ্যমে সবার বেতন যৌক্তিক হার বাড়ানো হবে বলে মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে।

গত বছর নির্ধারিত মজুরি কাঠামোতে পরিবর্তনের যে প্রস্তাব করা হয়েছে তাতে বেসিক বেতন দাঁড়াবে নিম্নরূপ:

-১ম গ্রেডে ১০,৪৪০ থেকে বেড়ে ১০৯৩৮ টাকা
-২য় গ্রেডে ৮৫২০ থেকে বেড়ে ৯০৪৪ টাকা
-৩য় গ্রেডে ৫১৬০ থেকে বেড়ে ৫৩৩০ টাকা
-৪র্থ গ্রেডে ৪৯৩০ থেকে বেড়ে ৪৯৯৮ টাকা
-৫ম গ্রেডে ৪৬৭০ থেকে বেড়ে ৪৬৮৩ টাকা

বেসিকে এই বৃদ্ধির ফলে ৫টি গ্রেডে মোট মজুরি বৃদ্ধির চিত্রটা হবে নিম্নরূপ:

-১ম গ্রেডে ১৭৬১০ থেকে বেড়ে ১৮২৫৭ টাকা (বৃদ্ধি ৬৪৭ টাকা)
-২য় গ্রেডে ১৪৬৩০ থেকে বেড়ে ১৫৪১৬ টাকা (বৃদ্ধি ৭৮৬ টাকা)
-৩য় গ্রেডে ৯৫৯০ থেকে বেড়ে ৯৮৪৫ টাকা (বৃদ্ধি ২৫৫ টাকা)
-৪র্থ গ্রেডে ৯২৪৫ থেকে বেড়ে ৯৩৪৭ টাকা (বৃদ্ধি ১০২ টাকা)
-৫ম গ্রেডে ৮৮৫৫ থেকে বেড়ে ৮৮৭৫ টাকা (বৃদ্ধি ২০ টাকা)

সরকারি মজুরি কাঠামো বৃদ্ধি ও বাস্তবায়নের দাবিতে গত বেশ কয়েকদিন ধরেই কাজ বন্ধ রেখে আন্দোলন চালিয়ে আসছেন পোশাক শ্রমিকরা। এতে পোশাক শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া সড়ক বন্ধ রেখে আন্দোলন, বাস ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও শ্রমিক আহতের ঘটনা ঘটে।

এর আগে গেল বছর মালিক-শ্রমিক পক্ষের সঙ্গে কথা বলে পোশাক খাতে সর্বনিম্ন ৮ হাজার টাকা মজুরি চূড়ান্তের সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে এ মজুরি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। আর এ মজুরি কার্যকর নিয়ে শ্রমিকরা আন্দোলন করে।









Leave a reply