ঐক্যফ্রন্ট জাস্ট ননসেন্স: অর্থমন্ত্রী

|

ঐক্যফ্রন্টের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানো অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, জাস্ট ননসেন্স। এসব শুধুমাত্র এক্সকিউজ খুঁজে।

বুধবার সিলেটে ছোট ভাই ড. এ কে আব্দুল মোমেনের মনোনয়নপত্র জমাদানের সময় এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

মুহিত বলেন, আমরা জিতবই, এবারের নির্বাচনে প্রতিযোগিতা হবে সহজতর।

লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড সম্পর্কে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, জাস্ট ননসেন্স। এসব শুধুমাত্র এক্সকিউজ খুঁজে। নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের যে তালিকা দিয়েছে সেগুলো দেখা হচ্ছে। এসব বাদ দিয়ে তাদের চেষ্টা করা উচিত, কীভাবে নির্বাচনে ভালো করা যায়।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কোনো চ্যালেঞ্জ কিনা এমন প্রশ্নে মুহিত বলেন, এতে বিএনপির সুবিধা হয়েছে, ঐক্যফ্রন্টের যিনি বড় নেতা তার রাজনীতিতে হাতেখড়ি আওয়ামী লীগে। তবে তিনি নির্বাচনে নৌকার জয়ে এসব জোট, ফ্রন্টকে কোনো চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখেন না।

অর্থমন্ত্রী বলেন, সিলেট-১ আসন যে দল জিতে সে দল ক্ষমতায় যায়, এবারও তাই হবে, আওয়ামী লীগই জিতবে এবং ক্ষমতায় যাবে এবং এটা অব্যাহত থাকবে।

এদিন সিলেটে মনোনয়ন জমা দেন শীর্ষ দুই দলের হেভিওয়েট প্রার্থীরা।

মনোনয়ন জমা দেয়ার পর তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় আবুল মাল আবদুল মুহিতের ভাই ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, প্রত্যাশা জয়লাভ করা, প্রত্যাশা মানুষের আশা আকাঙ্ক্ষা পূরণ করা এবং প্রত্যাশা আবারো আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় নিয়ে যাওয়া।

বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আসনে হেভিওয়েট প্রার্থী দিয়েছে সেটা কোনো চ্যালেঞ্জ মনে করেন কিনা এমন প্রশ্নে ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, বিএনপির শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে এটাই বড় কথা। তবে জয় নৌকারই হবে। যতই জোট করুক সেসব জোটের দলগুলো নামসর্বস্ব। জনগণের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ দেশের যে উন্নয়ন করেছে তাতে নিজেদের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাখতেই মানুষ নৌকায় ভোট দেবে বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে সিলেট-১ আসনে মোমেনকে টেক্কা দিতে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরীকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

বুধবার বেলা সাড়ে ৪টায় মনোনয়ন জমা দিয়ে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, দেশে মানুষের ওপর যে অত্যাচার নিপীড়ন হচ্ছে তা থেকে মুক্তি দিতেই বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে এসেছে। ফ্রন্ট জয় নিয়েই ফিরবে। দেশের মানুষকে সঙ্গে নিয়েই এই দুঃশাসন মুক্ত করা হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এরআগে দুপুরে সিলেটের রিটার্নিং কর্মকর্তা এম কাজী ইমদাদুল ইসলামের কার্যালয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন সিলেট-৬ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ২০০৮ সালে প্রায় ৮৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলাম। গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ সরকার সিলেটে-৬ আসনে তথা সারা বাংলাদেশে যে উন্নয়ন করেছে এর প্রতিদান জনগণ দেবে। এবারো বিপুল ভোটে নৌকাকে বিজয়ী করবেন তারা।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট হবে, সব দল অংশগ্রহণ করেছে জনগণ যাকেই বেছে নেবে তিনিই জয়ী হবেন। তবে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সিলেটের বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জের মানুষ এবারও নৌকাকেই বেছে নেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।









Leave a reply