নেত্রকোণায় যুবক হত্যার দায়ে ২ জনের যাবজ্জীবন

|

কামাল হোসাইন, নেত্রকোণা

নেত্রকোণার পূর্বধলায় মো. আল মামুন (২৫) নামে এক যুবককে হত্যার দায়ে দুই জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার করে টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো তিন মাসের সশ্রমকারাদণ্ড দেওয়া হয়। মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় একজনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

রোববার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ কে এম রাশেদুজ্জামান রাজা এই রায় ঘোষণা করেন। এ সময় দণ্ডিত আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। মো. আল মামুন পূর্বধলা উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের মো. জব্বার ফকিরের ছেলে।

যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, পূর্বধলার ইসুলিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. এনামুল (২৫), মো. খায়রুল (২২)। আর খালাসপ্রাপ্ত হলেন, মো. রেজাউল ইসলাম (২০)। তিনিও ইসুলিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

মামলার সরকারি কৌঁশলী ইফতেকার উদ্দিন তালুকদার জানান, পূর্বধলার নোয়াপাড়া গ্রামের মো. আল মামুনের সঙ্গে একই উপজেলার ইসুলিয়া গ্রামের মো. এনামুলের একটি মুঠোফোন নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গত ২০১৪ সালের ১ মে বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে আল মামুন ইসিুলিয়া বাজার থেকে একটি বাইসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিল। বাজারের পাশের সড়কে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা আসামিরা তাঁকে লোহার রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করেন। এতে তিনি গুরুতর আহত হলে স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাঁকে পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সর্বশেষ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই হাসপাতালে ছয় দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মৃত্যুর পর দিন নিহতের বাবা পাঁচ জনকে আসামি করে পূর্বধলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে এর পরের বছর ২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি তিন জন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। বিচারক ১২ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে রোববার দুপুরে এই রায় ঘোষণা করেন। আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন মো. শহর আলী খান।









Leave a reply