চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার ৭ বছরের কারাদণ্ড

|

চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন বিচারিক আদালত। পাশাপাশি দশ লাখ টাকা জরিমানাও হয়েছে তার। ট্রাস্ট্রের নামে কেনা ৪২ কাঠা জমি রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে এ রায় ঘোষণা করেন পুরাতন ঢাকার কারাগারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আক্তারুজ্জামান।

এর আগে, বেলা সাড়ে ১১টা থেকে এই মামলার রায় পড়া শুরু করেন। মামলার অন্য তিন আসামি হারিছ চৌধুরী, মনিরুল ইসলাম ও জিয়াউল ইসলাম মুন্নাকেও সাত বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। আদালত তার পর্যবেক্ষণে বলেন, সরকারের সর্বোচ্চ পদে থেকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। অন্য আসামিদের যোগসাজসে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এমন ঘটনার পুনারাবৃত্তি রোধে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতেই সর্বোচ্চ সাজা দেয়া হলো। মামলার অপর তিন আসামির মধ্যে খালেদা জিয়ার তৎকালীন রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী পলাতক আছেন। বাকি দুই আসামি মনির ও মুন্নাকে রায় পড়ার সময় আদালতে হাজির করা হয়েছিল। রায় ঘোষণার সময় আদালতে ছিলেন না খালেদা জিয়া ও তার আইনজীবীরা।

২০১০ সালে, ৩ কোটি ১৫ লাখ টাকার অবৈধ লেনদেনের অভিযোগে এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে এই মামলাটি করে দুদক।









Leave a reply