মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ওপর নিষেধাজ্ঞার চিন্তা যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ’র

|

????????????????????????????????????

রোহিঙ্গা নিপীড়নের কারণে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

ওয়াশিংটন, ব্রাসেলস এবং ইয়াঙ্গুনের বেশ কয়েকজন শীর্ষ কূটনীতিকের সাথে আলাপ করে এমন ভাবনার কথা জানতে পেরেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। আজ সোমবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তবে এ বিষয়ে এখনও কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।

চুড়ান্ত সিদ্ধান্তের আগে আরও কিছুদিন নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে নেবে পশ্চিমা দেশগুলো। এর মধ্যে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য সহায়তা বাড়ানোরও চেষ্টা করা হবে।

এক মাস আগেও মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি আলোচনায় ছিল না জানিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, এতেই প্রমাণিত হয় মিয়ানমারে ঘরবাড়ি ছেড়ে রোহিঙ্গাদের পালিয়ে যাওয়া পশ্চিমা নীতিনির্ধারকদের কতোটা চাপে ফেলেছে।

মিয়ানমার ইস্যুতে আগামী ১৬ অক্টোবর বৈঠকে বসবেন ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। তবে এই বৈঠকেই নিষেধাজ্ঞা আসবে এমনটি ভাবছেন না কূটনীতিকরা। রয়টার্সকে ডেনমার্কের উন্নয়ন সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী উল্লা টরন্যাস বলেছেন, সেনাবাহিনীর উপর চাপ বাড়াতে আলোচনার টেবিলে রোহিঙ্গা সংকটকে জোরালোভাবে নিয়ে আসার চেষ্টা করছে তার দেশ।

নিষেধাজ্ঞার ধরণ কেমন হতে পারে সে বিষয়ে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেনা কর্মকর্তাদের বিদেশ গমনে বাধা, দেশের বাইরে থাকা সম্পদ জব্দ করা, তাদের সাথে নিষেধাজ্ঞা জারি করা দেশের কারো কোনো ধরনের লেনদেন বা ব্যবসা না করাসহ নানা বিষয় অন্তর্ভূক্ত হবে।

/কিউএস





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply