জিন্নাত আলীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

|

বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা ব্যক্তি কক্সবাজারের রামু উপজেলার জিন্নাত আলী আজ সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদ ভবনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করেন। প্রধানমন্ত্রী তার সকল চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ করে। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিন্নাত আলীকে পাঁচ লাখ টাকা অনুদান দেন। এমনকি তাকে বাড়ি করে দেয়ার নির্দেশ দেন। এসময় জিন্নাত আলীর সাথে তার নির্বাচনী এলাকার সাংসদ সায়মুম সরোয়ার কমল উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে জিন্নাত আলী সংসদের ক্যান্টিনে গেলে তার সঙ্গে ছবি তোলার জন্য ভিড় করেন মন্ত্রী-এমপিরা। সংসদের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও এমপি-মন্ত্রীদের সহকারী ও একান্ত সহকারীরা তাকে ঘিরে ছবি তোলেন, সেলফিও তুলেন।

জানা যায় জিন্নাত আলীর এই দৈর্ঘ্য মোটেও স্বাভাবিক নয়। হরমোনজনিত সমস্যায় আছেন বিপাকে। বর্তমানে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে।

গিনেস রেকর্ড অনুযায়ী বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে দীর্ঘ ব্যক্তি হলেন মিশরের সুলতান কসেন। তার উচ্চতা ৮ ফুট ৩ ইঞ্চি। আর ২২ বছর বয়সী জিন্নাত আলীর উচ্চতা ৮ ফুট ৫ ইঞ্চি।

১২ বছর বয়সের পর থেকেই অস্বাভাবিক ভাবে বাড়তে থাকেন তিনি। ফলে স্বাভাবিক কাজকর্ম থেকেও সরে আসতে হয় তাকে। লম্বা দেহটা নিয়ে খুব একটা স্বস্তিও বোধ করেন না তিনি।

অস্বাভাবিক উচ্চতার কারণে অসুবিধা হচ্ছে তার। ঘরে ঢোকা-বের হওয়ার মতো দৈনন্দিন কাজেই বেগ পেতে হচ্ছে জিন্নাতকে। তার বড় সমস্যা শারীরিক দুর্বলতা। দুই হাঁটুতে ব্যথা। শারীরিক গড়নের কারণে ক্ষুধার তীব্রতাও বেশি। হরমোনের কারণে তার অস্বাভাবিক বৃদ্ধি হয়েছে এবং তা আরও বাড়ার সম্ভাবনা আছে।

জিন্নাত আলীর প্রতিবেলায় খাবার লাগে এক কেজির বেশি। মাপ অনুযায়ী বাজারে পোশাক মেলে না। ৩ ভাই আর এক বোনের অসচ্ছল পরিবার চালাতে হিমিশিম খাচ্ছিলেন তার বাবা। বাবার অসুস্থ্যতার পর সংসারের হাল ধরেন তার বড় ভাই।

জাইগানটিজম নামক রোগে ভোগা জিন্নাত আলীর মাথায় টিউমারের কারণে শরীরের হরমোনে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। দেশে এই রোগের চিকিৎসাও ব্যয়বহুল।

সর্বকালের রেকর্ড অনুযায়ী বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ মানুষ ছিলেন রবার্ট পারশিং ওয়েডলো। তিনি ছিলেন ৮ ফুট ১১ ইঞ্চি লম্বা। ১৯১৮ সালে ২২ ফেব্রুয়ারীতে জন্ম নেয়া এই মার্কিনী মারা যান ১৯৬৯ সালে।









Leave a reply