অতিরিক্ত কাজের চাপেই টিভি সাংবাদিকের মৃত্যু

|

মিয়া সাদো (৩১) জাপানের এনএইচকে টিভির রাজনৈতিক সংবাদের প্রতিনিধি ছিলেন। ২০১৩ সালের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহ করছিলেন। নির্বাচন শেষের ৩ দিনের পর নিজ বাসায় তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। চিকিৎসকরা জানান, তার মৃত্যু হয়েছে হার্ট অ্যাটাক থেকে। সরকারি তদন্তে দেখা যায় তিনি মাত্রাতিরিক্ত ওভারটাইম করেছেন। যে মাসে মারা যান সে মাসে মাত্র দুই দিন সাপ্তাহিক ছুটি কাটিয়েছেন; ওভারটাইম করেছেন ১৫৯ ঘন্টা।

মিয়া সাদোর মৃত্যুর আসল কারণটা ৪ বছর ধরে চেপে গিয়েছিলো এনএইচকে টিভি কর্তৃপক্ষ। সত্যটা প্রকাশ হলো এতোদিনে। সেই সাথে সাদোর মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন টিভি চ্যানেল কর্তৃপক্ষ।

প্রতি বছরই জাপানে এরকম অতিরিক্ত কাজের চাপে মৃত্যু হচ্ছে। ওভার টাইম করতে গিয়ে বিপর্যস্ত হয়ে কেউ কেউ আত্মহত্যাও করছে। ২০১৫ সালে  বিজ্ঞাপন সংস্থায় কর্মরত এক নারী এরকম আত্মহত্যা করে। তদন্তে দেখা যায়, তিনি যে মাসে মারা যান সে মাসে ১০৫ ঘণ্টা ওভারটাইম করেন। চলতি বছরের জুলাই মাসে টোকিও অলিম্পিক স্টেডিয়ামে কাজ করা এক যুবকও আত্মহত্যা করে। পরে দেখা যায় তিনি ২০০ ঘণ্টা ওভারটাইম করে ছিলেন।

জাপানে এরকম অতিরিক্ত কাজ করে মৃত্যু এতোটা প্রবল হয়ে দাড়িয়েছে, সরকার ৩০০ কোম্পানির কালো তালিকা করেছেন যেসব কোম্পানিতে অতিরিক্ত কাজ করতে হয় কর্মচারীদের। এমনকি সরকার এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে সপ্তাহের শেষ শুক্রবারকে ‘প্রিমিয়াম শুক্রবার’ ঘোষণা করেছেন সেদিন আগে ভাগে কর্মচারীরা কাজ ছেড়ে চলে যেতে পারবেন।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে  জাপানের ৭.৭ শতাংশ কর্মচারীরা নিয়মিতভাবে সপ্তাহে ২০ ঘণ্টা করে ওভারটাইম করে। সরকারি হিসাব মতে, ২০১৭ সালের মার্চ পর্যন্ত অতিরিক্ত কাজের ফলে ১৯১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

টিবিজেড/

 

 




Leave a reply