আর কখনো স্বাভাবিক হবে না সাকিবের কনিষ্ঠ আঙুল!

|

বাম হাতের কনিষ্ঠ আঙুলের যে ইনজুরিতে পড়েছিলেন সেই জানুয়ারি মাসে। কিন্তু সময়মত অস্ত্রোপচার না করানো এবং পরের ম্যাচগুলোতে জোর করে খেলার কারণে আহত আঙ্গুলটিতে ইনফেকশন হয়ে যায়। গত বেশ কিছুদিন ধরে চিকিৎসার মধ্যে থাকলেও অবস্থা এমন পর্যায়ে গেছে যে, আঙ্গুলটি আর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে না! গত রাতে খোদ সাকিব আল হাসান জানালেন এই শঙ্কার কথা।

চিকিৎসা করানোর উদ্দেশ্যে শুক্রবার দিবাগত রাতে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার আগে বিমান বন্দরে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এ তথ্য জানান সাকিব। এবার পাঁচদিন অস্ট্রেলিয়ায় থাকবেন। পরে আবারও যেতে হবে। ইনফকেশন শূন্যতে নেমে এলে অস্ত্রোপচার করা লাগবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

জানুয়ারিতে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলার সময়ই আঙুলের ইনজুরিতে পড়েন সাকিব। এরপর বেশ কিছুদিন খেলার বাইরে ছিলেন এবং আঙ্গুলের চিকিৎসা করিয়ে মাঠে ফেরেন তিনি। আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার সময়ই জানা গেছে, পুরোপুরি সুস্থ হতে হলে আঙুলে অস্ত্রোপচার করাতে হবে।

সাকিব চেয়েছিলেন এশিয়া কাপ না খেলে অস্ত্রোপচারটা করে ফেলতে। কিন্তু বিসিবি সভাপতি চেয়েছিলেন সাকিব এশিয়া কাপটা খেলে তারপর অস্ত্রোপচার করুন। যদিও তিনি সিদ্ধান্তের ভার সাকিবের ওপর ছেড়ে দেন। শেষ পর্যন্ত ফিজিওর রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করেই সাকিব এশিয়া কাপ খেলার সিদ্ধান্ত নেন। ব্যাথা নাশক ইনজেকশন দিয়ে এবং ঔষধ খেয়ে সাকিব এশিয়া কাপ খেলে যান।

যদিও শেষ পর্যন্ত পারেননি খেলতে। সুপার ফোরের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের মুখোমুখি হওয়ার আগেই আঙুলের ব্যাথা এতটাই তীব্র হয় যে তিনি ব্যাটই ধরতে পারছিলেন না। বোলিং তো দুরে থাক। শেষ পর্যন্ত সে অবস্থায়ই দেশে ফিরে আসেন সাকিব। খেলতে পারেননি পাকিস্তানের বিপক্ষে সুপার ফোরের শেষ ম্যাচ এবং ভারতের বিপক্ষে ফাইনাল।









Leave a reply