জামিন ছাড়াই বহাল তবিয়তে আছেন হুদা দম্পতি

|

উচ্চ আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত হয়েও জামিন না নিয়ে বহাল তবিয়তে রয়েছেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা ও তার স্ত্রী সিগমা হুদা। হাইকোর্ট ৪ বছরের সাজা দিয়ে, নাজমুল হুদাকে আত্মসমর্পণ করতে বললেও তিনি তা করেননি। তাই তার জামিন বহাল নেই। জেষ্ঠ্য আইনজীবীরা বলছেন, এভাবে জামিন ছাড়া বাইরে থাকা আইনের বরখেলাপ। আদালতের দৃষ্টিতে এ ধরনের আসামিকে পলাতক বলা হয়।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ঘুষগ্রহণের অভিযোগে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা ও তার স্ত্রী সিগমা হুদার বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ২১ মার্চ ধানমন্ডি থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন। একই বছরের ২৭ আগস্ট মামলায় নাজমুল হুদাকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার একটি আদালত। এর বিরুদ্ধে আপিল করলে ২০১১ সালের ২০ মার্চ খালাস পান হাইকোর্টে। পরে ২০১৪ সালের ১ ডিসেম্বর হাইকোর্টের রায় বাতিল করে, মামলাটি আবারও তদন্তের নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। তদন্ত শেষে গেলো বছরের ৮ নভেম্বর হুদাকে ৪ বছরের সাজা দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে তাকে আত্মসমর্পনেরও নির্দেশ দেয়া হয়। এর বিরুদ্ধে তিনি আপিল করলে, সেটি খারিজ হয় আত্মসমর্পন না করায়। পরে তিনি লিভ টু আপিলের আবেদন করলে, সেটিও খারিজ হয় উত্থাপিত হয়নি মর্মে।

জেষ্ঠ্য আইনজীবী শ.ম রেজাউল করিম জানান, হাইকোর্টে কারও দু’বছরের বেশি সাজা হলে, অবশ্যই আত্মসমর্পণ করতে হবে। না করা আইনের বরখেলাপ।

আরেকটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান থেকে মাসে ২৫ হাজার টাকা করে বিভিন্ন সময়ে চেকের মাধ্যমে মোট ৬ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগে ২০০৮ সালে আরেকটি মামলা হয় নাজমুল হুদার বিরুদ্ধে। এ মামলাটির কার্যক্রম ২০১৬ সালে হাইকোর্ট বাতিল করলেও ২০১৭ সালের ৭ মার্চ দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বাতিল করেন আপিল বিভাগ। এর ফলে মামলাটি এখন বিচারাধীন। কিন্তু এই মামলায়ও জামিন নেননি নাজমুল হুদা দম্পত্তি। জামিন ছাড়াই পার করে দিয়েছেন দেড় বছর।

দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেছেন, হুদার বিরুদ্ধে দুর্নীতির সব অভিযোগ প্রমাণ করতে পেরেছি। তাই রায় আমাদের পক্ষে এসেছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, চার বছরের দণ্ডের মামলাটিতে আপিল খারিজের আদেশ দেন আপিল বিভাগের তৎকালীন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি ওয়াহহাব মিয়ার নেতৃত্বাধীন পূর্নাঙ্গ বেঞ্চ। অনেকে মনে করেন, দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হুদা এখন নানা ফন্দিফিকির করছেন জেলে যাওয়া থেকে রেহাই পেতে।

আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অন্য একটি মামলায় নাজমুল হুদাকে ১২ বছরের সাজা দিয়েছিলেন বিচারিক আদালত।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply