রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিচার না করলে আইসিসি করবে: সু চিকে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

|

রোহিঙ্গা নিপীড়নে জড়িতদের মিয়ানমার যদি বিচারের আওতায় না আনতে পারে; তাহলে আন্তর্জাতিক বিচার আদালত- আইসিসি’র মাধ্যমে তা নিশ্চিত করা হবে। বৃহস্পতিবার, ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট নেইপিদো’য় অং সান সু চি’র সাথে বৈঠকে এ তাগিদ দেন।

মিয়ানমারে দু’দিনের রাষ্ট্রীয় সফরের সময় ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সু চি’র সাথে সাক্ষাৎ করেন। এসময়, তিনি বলেন, নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের ন্যায়বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মহলকে উদ্যেগী হতে হবে। জেরেমি আরও বলেন, যেহেতু আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের সদস্য নয় মিয়ানমার। সেক্ষেত্রে, বিকল্প আর কি কি উপায়ে দায়ীদের শাস্তি নিশ্চিত করা যায়; সে বিষয়গুলোও বিবেচনায় রাখতে হবে।

বিচার কার্যক্রম চালাতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বিশেষ অনুমোদন নেয়ার বিষয়টি তিনি প্রস্তাব দেন। একইদিন, রাখাইন সফরকালে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের মানুষদের সাথে কথা বলেন, জেরেমি হান্ট। সংঘাতে প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়া এলাকাগুলো পরিদর্শন করেন তিনি।

জেরেমি হান্ট বলেন, সু চি’র সাথে সাক্ষাতে রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের সাথে জড়িতদের দ্রুত বিচারের আনার তাগিদ দিয়েছি। কিন্তু, ভুলে গেলে চলবে না মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে নিয়ন্ত্রণের কোনো ক্ষমতা নেই রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টার। সেক্ষেত্রে, সেনাপ্রধানের সাথে দেখা করাটা জরুরি ছিলো। তাকে বলতাম, প্রত্যেক অপরাধের বিচার রয়েছে। প্রশাসন যদি সংশ্লিষ্টদের আইনের কাঠগড়ায় দাড় করাতে না পারে; তাহলে আন্তর্জাতিক আদালতে তাদেরই জবাবদিহিতার মুখোমুখি হতে হবে।









Leave a reply