বন্যার কারণে ৫৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান বন্ধ

|

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:

গাইবান্ধায় নদ-নদীর পানিবৃদ্ধি অপরিবর্তিত থাকায় ও বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় ৫৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদানসহ সকল কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও চার উপজেলার ১৯ ইউনিয়নের চরাঞ্চল ও নিম্নঞ্চলে প্রায় ১৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি রয়েছে।

এদিকে পানির তোড়ে সদর, সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার তীরবর্তী এলাকায় নদী ভাঙনে গত ১০দিনে অন্তত দুই হাজার পরিবার গৃহহীন হয়েছে। গৃহহীন অধিকাংশ পরিবার উচু জায়গা ও বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ১৫শ হেক্টর জমির আমন ক্ষেত ও বীজতলাসহ বিভিন্ন ফসল।

গাইবান্ধা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম মণ্ডল জানান, নদ-নদীর পানি বাড়ায় চরাঞ্চল নিম্নঞ্চলের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর মাঠে পানি উঠে। এছাড়া বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চলাচলের রাস্তাঘাট পানির নিচে তলিয়ে যায়। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকরা উপস্থিত হলেও শিক্ষার্থীশূন্য হয়ে পড়ে। পানি উঠায় চার উপজেলায় ৫৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ২৪টি, ফুলছড়িতে ১৩টি, সাঘাটায় ১৩টি ও গাইবান্ধা সদরে ৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।

তিনি আরও জানান, এসব বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের পাঠদানে সাময়িক ক্ষতি হবে। তবে পানি কমলে বিকল্প ব্যবস্থা করে পাঠদান করে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া হবে। তবে পানি বৃদ্ধি অব্যহত থাকলে চরাঞ্চলে আরও বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নুরুন্নবী সরকার জানান, তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে কাপাসিয়া, হরিপুর, বেলকা, শ্রীপুর, কঞ্চিবাড়ী ও চণ্ডিপুর ইউনিয়নের প্রায় ৫ হাজার হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। এছাড়া পানি স্রোতে এসব এলাকার অন্তত দেড় হাজার পরিবারের বসতভিটে, আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। এছাড়া তীব্র স্রোতে ভাটি কাপাসিয়া চরের আশ্রয়ণ প্রকল্পের বেশিভাগ অংশ নদীতে বিলীন হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে চাল ও শুকনা খাবার বিতরণ করা হচ্ছে।

ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে উপজেলার কঞ্চিপাড়া, ফজলুপুর, এরন্ডাবাড়ী, উড়িয়া ও গজারিয়া ইউনিয়নে অন্তত ৬ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। পানিবন্দী এসব পরিবারের মানুষ তাদের গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগী নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

তিনি আরও বলেন, বন্যা ও ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তার জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে তালিকা পাঠানো হয়েছে। বুধবার থেকে তালিকা ধরে প্রায় ৯শ’ ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে চালসহ শুকনা খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। তবে চাহিদার তুলনায় তা অপ্রতুল্য।

গাইবান্ধা জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা ইদ্রিস আলী জানান, নদ-নদীর পানি বাড়ায় সদর উপজেলাসহ চার উপজেলার চরাঞ্চল ও নিম্নঞ্চলের ১৯ ইউনিয়নের ৮৪ গ্রামের প্রায় ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসন বন্যার্ত মানুষের তালিকা তৈরী করেছে। ইতোমধ্যে তালিকা ধরে এসব মানুষের মধ্যে ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার ও ১০০ মেট্রিক টন চাল বিতরণ শুরু করা হয়েছে।

গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান জানান, পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতে তীরবর্তী এলাকায় ব্যাপক নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। তবে ভাঙন প্রতিরোধে জরুরি পদক্ষেপ হিসেবে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ চলমান রয়েছে। তিনি আরও জানান, তিস্তা, যমুনা, করতোয়া ও ঘাঘট নদীসহ সবকটি নদ-নদীর পানি আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে কমতে শুরু করবে বলে আশা করা হচ্ছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply