অর্থ আত্মসাতের দায়ে জেলা প্রশাসন কর্মচারীর ২৮ ও স্ত্রী’র ৮ বছরের কারাদণ্ড

|

ফরিদপুরে দুদকের মামলায় স্ত্রীসহ শরীয়তপুরে জেলা প্রশাসনের কর্মচারী ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকারকে ২৮ বছর ও তার স্ত্রীকে ৮ বছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারিক হাকিম মতিয়ার রহমান এ আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- মো. ইমাম উদ্দিন (৪৫) ও কমলা আক্তার (৩৮)। একই সঙ্গে ইমাম উদ্দিনকে ৮৯ লাখ ৯৪ হাজার ২৪ টাকা আর্থিক দণ্ড অনাদায়ে আরো সাত মাস ১৫ দিন বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং কমলা আক্তারকে ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো দেড় মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে দুদকের আইনজীবী মজিবর রহমান বলেন, ২০১০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৫ সালের ২৬ মে পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকার হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে ইমাম উদ্দিন তার স্ত্রী অফিস সহকারী কমলা আক্তারের সহায়তায় আদালতের অর্থদণ্ডবাবদ প্রাপ্ত ৮৯ লাখ ৯৪ হাজার ২৪ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করে। এ অভিযোগে ২০১৫ সালের ১৮ জুন শরীয়তপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী হাকিম জিনিয়া জিন্নাত বাদী হয়ে পালং থানায় সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন।

পরে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় ফরিদপুরের সহকারী পরিচালক হাফিজুর ইসলাম এ অভিযোগটি তদন্ত করে ইমাম উদ্দিন ও কমলা আক্তারকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট প্রদান করেন।









Leave a reply