পূজার অনুষ্ঠান দেখতে যাওয়ায় দলিত তরুণকে পিটিয়ে হত্যা

|

বাড়ির পাশে মন্দিরে দুর্গা পূজা চলছে। পূজার শেষ দিন এক ধরনের ঐতিহ্যবাহী নাচের অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। সেই অনুষ্ঠানকে বলা হয় ‘গর্ব’। ভারতের গুজরাটে এমনই চল। সেই ‘গর্ব’ অনুষ্ঠান দেখতে গিয়েছিলেন দুই চাচাতো ভাই। জয়েশ সোলাঙ্কি ও প্রকাশ সোলাঙ্কি। সাথে ছিলেন আরও দুইজন। এরা সবাই দলিত সম্প্রদায়ের মানুষ; যাদেরকে ভারতের উচু বর্ণের হিন্দুরা ‘অচ্যুত’ মনে করেন।

অচ্যুত হওয়ায় মন্দির এলাকায় তাদের প্রবেশের সুযোগ নেই। তাই পাশের এক বাড়ির উঠোন থেকে নাচ দেখতে দাঁড়িয়েছিলেন এই তরুণরা। হঠাৎ করে তাদের ওপর চোখ পড়ে স্থানীয় উচু বর্ণের কয়েকজন ব্যক্তির। তারা কাছে অশ্রাব্য ভাষায় প্রকাশ ও জয়েশদেরকে গালাগালি শুরু করেন। সাথে শুরু হয় মারধর। বাড়ির দেয়ালের সাথে মাথা ঠেকিয়ে আছড়ানো হয় জয়েশের। লাঠিসোটা দিয়েও চলে পেটানো। এক পর্যায়ে অন্য লোকজন এসে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। ততক্ষণে প্রাণহীন হয়ে গেছে ২১ বছর বয়সী দলিত তরুণের দেহ। ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

গুজরাটের আনন্দ জেলার উনা গ্রামে শনিবার দিবাগত রাতের এ ঘটনায় মামলা নিয়েছে পুলিশ। বলেছে, অভিযুক্তদেরকে শিগগিরই গ্রেফতার করা হবে।

ভারতে দলিত সম্প্রদায়ের মানুষদের ওপর এমন বর্বর ঘটনা নিত্যদিনের। তাদের কোনো মানবিক অধিকার স্বীকার করা হয় না হিন্দু সমাজে। গুজরাট, উত্তর প্রদেশসহ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে এমন নিপীড়িত দলিতদের সংখ্যা ৩৬ কোটির বেশি।

/কিউএস









Leave a reply