সারাদেশে জমে উঠেছে কোরবানি পশু’র হাট

|

ঈদ ঘনিয়ে আসায় সারাদেশে হাটগুলোয় জমে উঠেছে বেচাকেনা। সীমান্তে কড়াকড়ি থাকায় এবার ভারতীয় গরুর আমদানি কম হয়েছে। তবে, দেশি গরুর পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে হাটগুলোতে। এর ফলে দাম গতবারের তুলনায় বেশি বলে অভিযোগ করছেন ক্রেতারা।

হাটে মাঝারি আকারের পশু বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭৫ হাজার টাকায়। কাঙ্ক্ষিত দাম পাওয়ায় খুশি বিক্রেতারাও। তবে, কিছুটা অসন্তোষ ক্রেতাদের মাঝে। তাদের অভিযোগ, গরু ব্যবসায়ীরা গতবারের তুলনায় এবার পশুর দাম বেশি রাখছে।

লক্ষ্মীপুরেও জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট। সেখানে মাঝারি আকারের দেশি গরুর চাহিদাই বেশি। এখানেও ক্রেতাদের অভিযোগ, গতবারের তুলনায় দাম কিছূটা বেশি।

শেষ সময়ে এসে ব্যাস্ততা বেড়েছে উত্তরাঞ্চলের হাটগুলোয়। সীমান্তে নজরদারি বাড়ায়, ভারতীয় গরুর দেখা মিলছে কম। খামারে পুষ্ট দেশি শংকর জাতের গরুর চাহিদা বেশি। মাঝারি আকারের গরু মিলছে ৬৫ থেকে ৮০ হাজারে। বড় গরু হাটে উঠলেও চাহিদা কম।

ঠাকুরগাঁওয়ে হাটে আতঙ্ক ছড়িয়েছে জাল টাকা। অনেকেই প্রতারিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ বিক্রেতাদের। শনাক্তকরণ মেশিন বসানোর পাশাপাশি জাল টাকা রোধে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সদস্যরা কাজ করছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ।

পার্বত্য জেলাগুলোয় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর বেচাকেনা। জাল টাকা রোধে বসানো হয়েছে শনাক্তকরণ মেশিন। অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে নিরাপত্তা জোরদার করেছে আইনশঙ্খলা রক্ষাবাহিনী।

এদিকে, কোরবানির পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় হাটগুলোয় কাজ করছে প্রাণিসম্পদ বিভাগের মেডিকেল টিম।

যমুনা অনলাইন: এফএম









Leave a reply