বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে জনপ্রশাসন পদকের টাকা দিলেন ইউএনও

|

ময়মনসিংহ ব্যুরো

ময়নসিংহের ত্রিশালে বাল্য বিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধে স্কুল ছাত্রীদের নিয়ে ব্রিগেড গঠন করেন ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন। তার পরিকল্পনা ও তত্ত্বাবধায়নে কাজ করে ব্রিগেড। এক বছরে বাল্যবিবাহ মুক্ত উপজেলা হয় ত্রিশাল উপজেলা। এই উদ্যোগের প্রেক্ষিতে জন প্রশাসন পদক-২০১৮ পান আবু জাফর রিপন। পদকের সাথে পাওয়া পাঁচ লক্ষ টাকা বাল্যবিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড টিমের উন্নয়নে দিয়ে দিয়েছেন তিনি।

উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন টাকার চেক আনুষ্ঠানিক ভাবে হস্তান্তর করেন। এই টাকা বাল্য বিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধে ব্যয় করা হবে বলে জানিয়েছেন ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ত্রিশাল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুন্নেছা বিউটি, সহকারী কমিশনার ভূমি এরশাদ উদ্দিন প্রমুখ।

আবু জাফর রিপন সংবাদ সম্মেলনে জানান, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা নিতে ব্রিগেড টিম গঠন করি। টিমের সফলতায় বাল্য বিয়ে ও যৌন হয়রানি মুক্ত হওয়ায় প্রশাসন আমাকে সর্বোচ্চ পদক প্রদান করেছে। এই অর্থ  নতুন করে আরও পাচটি ব্রিগেড গঠনে ব্যয় করা হবে ।

তিনি বলেন,  ত্রিশালের বাল্য বিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড ইতিমধ্যে দেশ ব্যাপী সারা ফেলেছে। এখন দেশের বিভিন্ন উপজেলায় এমন ব্রিগেড গঠনের প্রচেষ্টা চলছে বলে জানতে পেরেছি। এটি সম্ভব হলে দেশ থেকে বাল্য বিবাহ বিদায় নিবে।

বর্তমানে ত্রিশালে ১৮৮ জন ছাত্রী নিয়ে ১৮টি বাল্যবিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড টিম কাজ করছে। তাদের রয়েছে নির্দিষ্ট পোশাক ও সাইকেল।

উল্লেখ্য গত ২ শে জুলাই বাল্যবিবাহ ও যৌনহয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড গঠন করে সাধারণ (দলগত) ক্যাটাগরিতে জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি থেকে এ পুরস্কার তুলে দেন।









Leave a reply