বড়পুকুরিয়ায় দুর্নীতির সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে পেট্রোবাংলার তদন্ত কমিটিও

|

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া খনির কয়লা লোপাটের ঘটনায় তদন্ত কাজ শেষ করেছে পেট্রোবাংলার তদ্ন্ত দল। প্রতিবেদনটি মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছেন কর্মকর্তারা। প্রতিবেদন অনুযায়া জানা যায়,  সদ্য সাবেক এমডি হাবিবউদ্দিন আহমেদ, সাবেক এমডি আওরঙ্গজেব, আমিনুজ্জামান ও কামরুজ্জামানের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে পেট্রোবাংলার তদন্ত কমিটি।

এর আগে বড়পুকুরিয়া খনি এলাকা পরিদর্শন করেছেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যানসহ ৬ কর্মকর্তা। কয়লা গায়েবের ঘটনায় গতরাতে মামলা হয়েছে। আর অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে খনি এলাকায় বিক্ষোভ করেছে শ্রমিক সংগঠন।

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে প্রায় দেড় লাখ টন কয়লা লোপাট হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ২০০ কোটি টাকা বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত ২১ জুলাই এই খবর প্রকাশের পর তদন্ত কমিটি গঠন করে পেট্রোবাংলা। ৪ কার্যদিবসের মাথায় জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলো কমিটি।

দিনাজপুর কয়লা খনি এলাকা পরিদর্শন করেছেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ। তবে, গণমাধ্যমের সাথে কোন কথা বলতে রাজি হননি তিনি।

এদিকে, কোল মাইনিং কোম্পানির বরখাস্ত হওয়া এমডি প্রকৌশলী হাবীব উদ্দিন আহমেদসহ ১৯ জনকে আসামি করে কয়লা চুরির ঘটনায় দুর্নীতির মামলা হয়েছে। খনির ব্যবস্থাপক আনিসুর রহমান বাদি হয়ে পার্বতীপুর থানায় মঙ্গলবার রাতে মামলা করেছেন।

কয়লা লোপাটের ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির দাবিতে দিনাজপুরে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র।

বড়পুকুরিয়া কয়লা গায়েবের বিষয়ে তদন্ত করছে দুদকও। প্রাথমিকভাবে তারা কয়লা চুরির তথ্যও পেয়েছে। এরই মধ্যে সন্দেহভাজন চারজনের বিদেশ যাওয়া নিষেধ করেছে দুদক। তদন্ত কমিটি ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে।









Leave a reply