১২০ নারীকে ধর্ষণ-ভিডিও ধারণ, মন্দিরের প্রধান পুরোহিত গ্রেফতার

|

বাবা রাম রহিমের পর এবার খবরের শিরোনামে ভারতের হরিয়ানার এক স্বঘোষিত ‌’বাবা’। তান্ত্রিক সাধনায় সিদ্ধহস্ত এই ‘বাবা’র কাণ্ডকারখানা প্রকাশ্যে আসতে রীতিমতো তাজ্জব গোটা পুলিশ প্রশাসন। ফতেহাবাদের তোহানা শহরের বাসিন্দা এই তান্ত্রিকের নাম বাবা অমরপুরি। আপাতত ১২০ জন মহিলাকে ব্ল্যাকমেইল এবং ধর্ষণের অভিযোগে বছর ষাটেকের ওই তান্ত্রিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ফতেহাবাদ মহিলা থানার শীর্ষ আধিকারিক বিমলা দেবী জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরেই ভক্ত মহিলাদের তান্ত্রিক পুজোর নামে ডেকে এনে যৌন নির্যাতন করতেন ওই ‘বাবা’ বালকনাথ মন্দিরের প্রধান পুরোহিত অমরপুরিকে। ধর্ষণের নানা ভিডিও ক্লিপও বানিয়েছিলেন তিনি। নিজের মোবাইল ফোনে ভিডিওগুলি ধারণ করতেন।

তান্ত্রিক বাবার ঘরে তল্লাশি চালিয়ে এমন ১২০টি ভিডিও ক্লিপ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রত্যেকটি ক্লিপ সিডি করে রাখা ছিল বাবার জিম্মায়। তান্ত্রিককে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জেনেছে, ওই সিডিগুলি দেখিয়েই মহিলাদের ব্ল্যাকমেইল করতেন তিনি। পরে ভিডিও ভাইরাল করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ফের ওই মহিলাদের ধর্ষণ করতেন অমরপুরি।

পুলিশ জানিয়েছে, ১২০টি ভিডিও দেখে ওই ১২০ জন মহিলার খোঁজ শুরু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত নির্যাতিতাদের মধ্যে সাহস করে দু’জন এগিয়ে এসে তাদের বয়ান দিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, বহু বছর ধরেই ভক্তদের ভয় দেখিয়ে নিজের যৌন লালসা পূরণ করতেন অমরপুরি। তাঁর মন্দিরের ভিতরেই চলত ওই ঘৃণ্য কাজ। ধর্ষণের ভিডিও মোবাইলে রেকর্ড করে রাখতেন। পরে সেই ভিডিও দেখিয়ে ফের মহিলাদের মন্দিরে ডেকে এনে ধর্ষণ করতেন।

বিমলা দেবী জানিয়েছেন, গ্রেফতারের পর বাবাকে পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার অনুমতি পাওয়া গিয়েছে। তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। অভিযোগকারী এবং নির্যাতিতা সমস্ত মহিলাদের খুঁজে বের করে তাদের বয়ান নথিভুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। আপাতত দু’জন নির্যাতিতার বয়ানের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply