রুশ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা কেনা ঠেকাতে তুরস্ককে নিজেদের অস্ত্র দিতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

|

দূরপাল্লা ক্ষেপণাস্ত্র থেকে নিজেদের দেশকে রক্ষায় রাশিয়ার তৈরি অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৪০০ কেনার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে তুরস্ক। গত বছর স্বাক্ষর করা চুক্তির অধীনে আগামী বছর অস্ত্রটি পেতে পারে আঙ্কারা।

কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র চায় নিজেদের ন্যাটো মিত্র তুরস্ককে শক্তিশালী রুশ অস্ত্র কেনা থেকে বিরত রাখতে। তাদের অভিযোগ, রাশিয়ার এই অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর অন্যান্য দেশের তৈরি বিভিন্ন অস্ত্রের জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে। পশ্চিমা যেসব দেশে উৎপাদিত সমরাস্ত্র তুরস্ক ব্যবহার করছে তার পাশে রুশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কোনোভাবেই দেখতে চায় না ওয়াশিংটন।

ইতোমধ্যে নানা হুমকি দেয়া হয়েছে এরদোগান সরকারকে। যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে এফ-৩৫ নামের অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান প্রস্তুত ও বিতরণ প্রকল্প থেকে তুরস্ককে বাদ দেয়ার হুশিয়ারি দেয়া হচ্ছে। মার্কিন কংগ্রেসে ইতোমধ্যে এবিষয়ে বিল উত্থাপিত হয়েছে।

তবে সর্বশেষ হুমকির চেয়ে সমঝোতার পথেই হাঁটতে চাচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রুশ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনা বন্ধ করতে তুরস্ককে নিজেদের তৈরি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা প্যাট্রিয়ট দিতে চায় ওয়াশিংটন।

ইতোমধ্যে এ নিয়ে দুই তুরস্ক সরকারের সাথে আলোচনা শুরু করেছে মার্কিন প্রশাসন। হোয়াইট হাউজ আশা করছে, এই সমঝোতা সফল হলে দুই ন্যাটো মিত্রের মধ্যে সম্পর্ক অবনতি যে হুমকি তৈরি হয়েছে তা কেটে যাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি ও সামরিক বিষয়ক সহকারী মন্ত্রী টিনা কাইদানো সোমবার সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘প্যাট্রিয়ট বিক্রির বিভিন্ন দিক নিয়ে তুর্কিদেরকে আমরা বুঝানোর চেষ্টা করছি। অতীতে তারা এটি কিনতে চেয়েছিল। এখন কিভাবে সেটা কার্যকর করা যায় তা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

আগে প্যাট্রিয়ট কিনতে আগ্রহী হলেও প্রযুক্তি সরবরাহ ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র গড়িমসি করলে চীন থেকে একই ধরনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার আগ্রহ দেখায় তুরস্ক। তবে শেষ পর্যন্ত চীন থেকে না কিনে রাশিয়ার তৈরি এস-৪০০ ঝুঁকে আঙ্কারা, এবং ইতোমধ্যে চুক্তিও স্বাক্ষর করে।









Leave a reply