দলীয় পদ হারানোর শঙ্কায় ইমরান খান

|

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) পদ থেকে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সরাতে কার্যক্রম শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। দলীয় পদ থেকে সরে যাওয়া নিয়ে ইতোমধ্যে ইমরানের উদ্দেশে নোটিশ জারি করা হয়েছে। আদালতে এ-সংক্রান্ত মামলার শুনানি হবে ১৩ ডিসেম্বর। খবর ডনের।

তোশাখানা মামলায় অযোগ্য হওয়ার পর মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) তার বিরুদ্ধে এ কার্যক্রম শুরু হয়। রাষ্ট্রীয় উপহার বিক্রির তথ্য গোপন করায় ইমরান খানের পার্লামেন্ট সদস্যপদ এরইমধ্যে খারিজ করা হয়েছে। আর নির্বাচনের জন্য অযোগ্যও ঘোষণা করেছে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন (ইসিপি)।

তোশাখানায় থাকা উপহার এবং সেগুলো বিক্রি করে ইমরান খান আয়ের বিবরণ বিস্তারিতভাবে দেননি বলে গত আগস্টে অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের নেতৃত্বাধীন সরকার। পরবর্তীতে সরকারের পক্ষ থেকে সিইসি সিকান্দার সুলতান রাজার কাছে চিঠি পাঠানো হয়।

এরপরে গেলো সেপ্টেম্বরে নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া লিখিত জবাবে ইমরান প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন পাওয়া উপহারের কমপক্ষে চারটি বিক্রির কথা স্বীকার করেন।

পাকিস্তানের তোশাখানা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণাধীন একটি বিভাগ। তাতে বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাজ্যের প্রধান এবং বিদেশি বিশিষ্ট ব্যক্তি, শাসক, সংসদ সদস্য, আমলা ও কর্মকর্তাদের দেয়া মূল্যবান উপহার সংরক্ষণ করা হয়। তোশাখানার নিয়ম অনুযায়ী, প্রাপ্ত উপহার এবং এ জাতীয় অন্যান্য উপকরণের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রতিবেদন জমা দিতে হয়। ২০১৮ সালে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে উপহারের বিবরণ প্রকাশ করতে রাজি ছিল না ইমরানের নেতৃত্বাধীন পিটিআই সরকার।

/এমএন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply