প্রথমার্ধের এক হালিতে শেষ আটে এক পা ব্রাজিলের

|

ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে রীতিমত গোল উৎসব করেছে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। প্রথমার্ধে ৩৫ মিনিটের মধ্যেই চার গোলে এগিয়ে যায় সেলেসাওরা। ভিনিসিয়াস দিয়ে শুরু গোল তাণ্ডবের। এরপর একে একে স্কোর শিটে নাম তোলেন নেইমার, রিচার্লিসন ও পাকুয়েতা। প্রথমার্ধে ৪-০ গোলে এগিয়ে রয়েছে সেলেসাওরা।

কাতারের দোহার স্টেডিয়াম ৯৭৪-এ নকআউট পর্বের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামে তিতের শিষ্যরা। ম্যাচের শুরু থেকেই বল নিয়ন্ত্রণে রেখে একের পর এক আক্রমণ শানাতে থাকে সেলেসাওরা। এতে ফলাফলও পেয়ে যায় ব্রাজিল, ম্যাচের ৭ মিনিটে রাফিনিয়ার দুর্দান্ত গোলমুখি ক্রস একটুর জন্য মিস করেন নেইমার ও পাকুয়েতা। তাদের মিস করা বলটিকেই জালে জড়ান ভিনিসিয়াস জুনিয়র। এ সময় কোরিয়ান গোলকিপার ও চার জন ডিফেন্ডার ছিলেন তার সামনে। এটি ব্রাজিলের জার্সি গায়ে ভিনিসিয়াসের দ্বিতীয় ও বিশ্বকাপে তার প্রথম গোল।

এর কিছুক্ষণ পরেই ম্যাচের ১৩ মিনিটে দক্ষিণ কোরিয়ার ডি বক্সের ভেতরে ফাউলের শিকার হন রিচার্লিসন। এতে পেনাল্টি পায় সেলেসাওরা। আর সেই পেনাল্টিতেই গোল ব্যবধান দ্বিগুন করেন ব্রাজিল দলের প্রাণভোমরা নেইমার। এটি বিশ্বকাপে নেইমারের ৭ম গোল।

ছবি: সংগৃহীত

২-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টায় ম্যাচের ১৬ তম মিনিটে হুয়াং চো জোড়ালো শট ঝাঁপিয়ে পড়ে রক্ষা করেন ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক অ্যালিসন।

ম্যাচের ২৯ তম মিনিটে থিয়াগো সিলভার সাথে ওয়ান টু ওয়ান টাচে নান্দনিক গোল করে দলকে ৩-০ গোলে এগিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার রিচার্লিসন। কাতার বিশ্বকাপে এটি তার ৩য় গোল। রিচার্লিসন গোলের পর কোচ তিতের সাথে সাম্বা নাচেন ফুটবলাররা।

এর ঠিক ৭ মিনিট বাদেই স্কোর লাইন ৪-০ করেন মিডফিল্ডার পাকুয়েতা। ভিনিসিয়াসের ক্রস থেকে বল পেয়ে জালে জড়ান এই সেলেসাও মিডফিল্ডার। প্রথমার্ধের পুরো ৪৫ মিনিট নিষ্প্রভ ছিলেন কোরিয়ার তারকা খেলোয়াড় হুয়াং মিন সন।

প্রথমার্ধ শেষে স্কোরলাইন ৫-০ অথবা ৬-০ হলেও অবাক হতেন না ফুটবল সমার্থকরা, কেননা রিচার্লিসন, ভিনিসিয়াস, পাকুয়েতার মামুলি মিসগুলো না করতেন। যার ফলে ৪-০ গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করতে হয় সেলেসাওদের।

/আরআইএম





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply